শাবিপ্রবির ঘটনায় চবি শিক্ষক সমিতির উদ্বেগ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৮:৪৫ এএম, ২৭ জানুয়ারি ২০২২
ফাইল ছবি

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের মৌলিক সুযোগ-সুবিধার দাবির আন্দোলনে হামলা ও দমনকে অগ্রহণযোগ্য বলে বিবৃতি দিয়েছে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শিক্ষক সমিতি। একইসঙ্গে ভিসির বাংলোর বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও খাবার সরবরাহে বাধা দেওয়া অবিবেচনাপ্রসূত ও নিন্দনীয় কাজ বলেও মন্তব্য করেছে সংগঠনটি।

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) চবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. সেলিনা আখতার ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. সজীব কুমার স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই কথা জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে গত ১৩ জানুয়ারি ছাত্রী হলে সৃষ্ট ঘটনাকে কেন্দ্র করে যে অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে তাতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছে এবং গ্রহণযোগ্য সমাধানের জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আন্তরিক আহ্বান জানাচ্ছে।

এতে আরও বলা হয়, মানবিক মূল্যবোধসম্পন্ন মানবসম্পদ গড়ে তোলা যেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল লক্ষ্য, সেখানে যেকোনো পক্ষের অসহিষ্ণু আচরণ অনাকাঙ্ক্ষিত। শিক্ষার্থীদের মৌলিক সুযোগ-সুবিধার দাবির আন্দোলনে হামলা ও দমন যেমন অগ্রহণযোগ্য, সম্মানিত শিক্ষকের বাসার বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন ও খাবার সরবরাহে বাধা দেওয়া তেমনি অবিবেচনাপ্রসূত ও নিন্দনীয় কাজ।

চবি শিক্ষক সমিতি মনে করে, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ নিশ্চিত করার জন্য উদ্ভূত সমস্যাকে বিলম্বিত না করে সমস্যা সমাধানে সব পক্ষকে আন্তরিক হয়ে আলোচনার টেবিলে বসা একান্ত জরুরি। শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও সরকারের প্রতিনিধির সমন্বয়ে যথাযথ তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত কারণ অনুসন্ধানপূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য সরকারের প্রতি জোর দাবি জানায় সংগঠনটি।

জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গড়ে তোলার প্রত্যয়ে দেশের মাথাপিছু আয় ও বর্তমান সমাজব্যবস্থার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে সকল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা আবশ্যক বলে মনে করে চবি শিক্ষক সমিতি।

সর্বোপরি উক্ত সংকট নিরসনে সকল পক্ষকে দায়িত্বশীল আচরণ করার আহ্বানও জানান সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ।

এফএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]