ছাত্রলীগকর্মীর মারধরের পর ‘কানে শুনছেন না’ ঢাবি শিক্ষার্থী

ছাত্রলীগকর্মী মানিকুর রহমান মানিক (বামে) ও মাস্টারদা সূর্যসেন হল। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মাস্টার দা সূর্য সেন হলের একজন আবাসিক শিক্ষার্থীকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে ওই হল শাখা ছাত্রলীগের এক কর্মীর বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী হল প্রভোস্টকে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তিনি অভিযোগ করেন, ‘ছাত্রলীগকর্মীর চড়-থাপ্পড়ে তিনি কানে শুনতে পারছেন না।’ অভিযোগ তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করেছে হল প্রশাসন।

মঙ্গলবার (২৪ মে) রাতে এ ঘটনা ঘটে। বুধবার (২৫ মে) সকালে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী হল প্রভোস্টকে লিখিত অভিযোগ করেন।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর নাম সাজ্জাদুল হক সাঈদী। তিনি নৃবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র। অন্যদিকে অভিযোগ ওঠা ছাত্রলীগকর্মী হলেন মানিকুর রহমান মানিক। তিনি রাষ্ট্রবিজ্ঞান ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র। মানিক সূর্য সেন হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সিয়াম রহমানের অনুসারী। সিয়াম বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনের অনুসারী।

লিখিত অভিযোগে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী উল্লেখ করেন, ‘আমি মাস্টার দা সূর্য সেন হলের ২৪৯ নম্বর কক্ষের আবাসিক শিক্ষার্থী। মঙ্গলবার (২৪ মে) রাতে নিজ কক্ষে বসে অনলাইনে ক্লাস করছিলাম। ওই সময় আমার কক্ষে আসেন রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র মানিকুর রহমান মানিক। তিনি কক্ষে এসে আমার বাবা-মাকে তুলে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন। পরে তিনি আমাকে তার কাছে যেতে বলেন। তার কাছে গেলে তিনি আমার মুখে ও কানে চড় মারেন এবং সাজোরে লাথি দেন। কিছু বুঝে ওঠার আগেই তিনি আমাকে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি মারতে থাকেন। এরপর থেকে আমি কানে শুনতে পারছি না। আমার ওপর চালানো শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের ন্যায়বিচার নিশ্চিতে অনুরোধ জানাচ্ছি।’

ভুক্তভোগী সাজ্জাদুল হক সাঈদী জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমি প্রভোস্ট বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। আশা করি, এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার পাবো।’

তবে মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ছাত্রলীগকর্মী মানিকুর রহমান মানিক। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমি তার রুমে এমনিতেই খোঁজ-খবর নিতে গিয়েছিলাম। কোনো মারামারির ঘটনা ঘটেনি। তিনি যা বলছেন, তা সব বানানো।’

সূর্য সেন হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক মকবুল হোসেন ভূঁইয়া জাগো নিউজকে বলেন, ‘এ ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে হল প্রশাসন। তিনদিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।’

আল-সাদী ভূঁইয়া/এএএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]