অপরিকল্পিত উন্নয়নেই জনজীবন সংকটাপন্ন: ছাত্র ইউনিয়ন

ভারতের সঙ্গে অসম চুক্তি ও নতজানু পররাষ্ট্রনীতির জন্যই প্রতি বছর দেশের উত্তরাঞ্চল এবং উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল বন্যায় প্লাবিত হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বামপন্থি ছাত্রসংগঠন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ।

তিনি বলেন, ‘সরকারের অপরিকল্পিত উন্নয়নের জন্যই জনজীবন সংকটাপন্ন। সিলেট, সুনামগঞ্জসহ সারাদেশের যে ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতি তা গত ১২২ বছরে কেউ দেখেনি। অথচ এমন ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় সরকারের কোনো প্রস্তুতি নেই। এমনকি বানভাসি মানুষদের কাছে এখন পর্যন্ত ত্রাণ সহযোগিতা পৌঁছানো হয়নি। জনপ্রতি মাত্র সাড়ে ৬ টাকা বরাদ্দ করে জনগণের সঙ্গে তামাশা করা হচ্ছে। এমনকি জনগণকে অচ্ছুত মনে করে হেলিকপ্টার থেকে ত্রাণ ফেলে দেওয়া হচ্ছে। সেই ত্রাণের আঘাতে প্রায় দশজন আহত এবং একজন নিহত হয়েছেন। এছাড়া ভারতের সঙ্গে অসম চুক্তি এবং নতজানু পররাষ্ট্রনীতির জন্যই প্রতি বছর দেশের উত্তরাঞ্চল এবং উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল বন্যায় প্লাবিত হচ্ছে।’

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) দুপুর ২টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) রাজু ভাস্কর্যের সামনে অনুষ্ঠিত এক মানববন্ধন ও সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে এমন মন্তব্য করেন তিনি। এসময় মানববন্ধন থেকে অবিলম্বে বন্যাদুর্গত এলাকাগুলোতে দুর্যোগকালীন জরুরি অবস্থা ঘোষণাসহ পাঁচ দফা দাবি জানানো হয়।

অন্যান্য দাবিগুলো হলো— বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য চলমান বাজেট থেকে অর্থ বরাদ্দ, পর্যাপ্ত ত্রাণ এবং পুনর্বাসন নিশ্চিত, ভারতের সঙ্গে নতজানু পররাষ্ট্রনীতি এবং অসম চুক্তি বাতিল, হাওরাঞ্চলে স্বাভাবিক পানি প্রবাহে বাধা সৃষ্টিকারী সব অপরিকল্পিত সড়ক ও স্থাপনা বাতিল করা।

অপরিকল্পিত উন্নয়নেই জনজীবন সংকটাপন্ন: ছাত্র ইউনিয়ন

ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি বলেন, ‘প্রাকৃতিক দুর্যোগে যেখানে মানবিক সহযোগিতা নিয়ে সবার আগে সরকারের উপস্থিত হওয়ার কথা ছিল, সেখানে তারা পদ্মা সেতুর জাঁকালো আয়োজন নিয়ে ব্যস্ত আছেন। সেই উদ্বোধনে কোটি কোটি টাকার বাজেট বরাদ্দ করা হয়েছে। অথচ বানভাসি মানুষের জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ বরাদ্দ দেওয়া হয়নি। আমরা দাবি জানাই অবিলম্বে বর্তমান অর্থবছরের বাজেট থেকে বন্যার্তদের জন্য অর্থ বরাদ্দ দিতে হবে, পর্যাপ্ত ত্রাণসহ বন্যার্ত মানুষের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে হবে, ভারতের সঙ্গে সব নতজানু পররাষ্ট্রনীতি বাতিল করতে হবে, তা না হলে সারাদেশের সাধারণ মানুষ এর সমীচীন জবাব দেবে।’

ছাত্র ইউনিয়নের সহকারী সাধারণ সম্পাদক মাহির শাহরিয়ার রেজার সঞ্চালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন— বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সভাপতি খায়রুল হাসান জাহিন, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সভাপতি রেজোয়ান হক মুক্ত, ঢাকা মহানগর সংসদের সভাপতি শাহরিয়ার ইব্রাহিম মিমো।

এছাড়া বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন, কেন্দ্রীয় সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক সুমাইয়া সেতুসহ বিভিন্ন জেলা এবং বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আল-সাদী ভূঁইয়া/এমএএইচ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]