হলে নৈরাজ্য: প্রতীকী অনশনে রাবি শিক্ষক

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক রাবি
প্রকাশিত: ০২:৪৭ পিএম, ২৬ জুন ২০২২

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আবাসিক হলগুলোতে ছাত্রলীগ কর্তৃক শিক্ষার্থীকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন, হল থেকে বের করে দেওয়া, সিট বাণিজ্য ও চলমান নৈরাজ্যের প্রতিবাদ জানিয়ে প্রতীকী অনশন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. ফরিদ উদ্দীন খান।

রোববার (২৬ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের জোহা চত্বরে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত তিনি এই প্রতীকী অনশন কর্মসূচি পালন করেন। এ সময় অনশনে সংহতি জানিয়ে যোগ দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. সালেহ হাসান নকীব, আরবি বিভাগের অধ্যাপক ড. ইফতিখারুল আলম মাসউদ, শিক্ষার্থীর অভিভাবক বীর মুক্তিযোদ্ধা মাহমুদ জামাল কাদেরী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সচেতন ছাত্র সংগঠন।

অধ্যাপক ফরিদ উদ্দীন খান বলেন, বাংলাদেশের বিভিন্ন গণতান্ত্রিক আন্দোলনে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রসমাজের অনন্য অবদান রয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বর্তমান নৈরাজ্যকর পরিস্থিতি সেই অবদানকে ক্ষুণ্ন করছে। সাধারণ শিক্ষার্থীকে নির্যাতন ও নিপীড়ন করে মাঝরাতে হল বের করে দেওয়া হচ্ছে। এটা কোনো সভ্য সমাজে মেনে নেওয়া যায় না। পৃথিবীর কোনো দেশেই এরকম শিক্ষার্থী নির্যাতনের ঘটনা কখনোই ঘটে না যেটা বাংলাদেশে ঘটছে।

‘আমরা সচেতন শিক্ষকসমাজ অভিভাবক হিসেবে এ অসভ্যতা মেনে নিতে পারি না। অবিলম্বে এ ধরনের অসভ্যতা, নিপীড়ন ও অধিকার থেকে বঞ্চনা বন্ধ করতে চাই।’

তিনি আরো বলেন, অধিকাংশ শিক্ষক-শিক্ষার্থীর কেউই ছাত্রলীগ কর্তৃক এই নৈরাজ্যকর পরিস্থিতিকে পছন্দ করছেন না। কিন্তু তারা কোনো কারণে প্রকাশ্যে এসে এগুলোর বিরুদ্ধে কথা বলতে পারছেন না। মনে হচ্ছে তারা সবাই একটা ভয় ও অসহায় অবস্থার মধ্যে রয়েছেন। আমি জানি না কোথায় তাদের অসহায়ত্ব। এটা খুবই দুঃখজনক। এই সময়ে এসেও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটা প্রতিষ্ঠানের প্রশাসন বিভিন্ন ইস্যুতে অসহায়ত্ব প্রকাশ করছে। এ সময় তিনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে চলমান সংস্কৃতির বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ নেওয়ার আহ্বান জানান।

অনশনে সংহতি জানিয়ে অধ্যাপক ড. ইফতিখারুল আলম মাসউদ বলেন, প্রশাসন থাকা স্বত্ত্বেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একজন বন্ধু আরেকজন বন্ধুকে, একজন ছাত্র আরেকজন ছাত্রকে হল থেকে বের করার ঘটনা ঘটছে। এটা শুধু একটা কালচারের পরিবর্তনই নয় বরং মূল্যবোধের চরম অবক্ষয়। এটা এক প্রকার জঙ্গি আচরণ। এই কালচারের পরিবর্তন না হলে পরবর্তীতে এই সন্ত্রাসীরা পুরো বিশ্ববিদ্যালয়কে গিলে খাবে।

অনশনে বীর মক্তিযোদ্ধা মাহমুদ জামাল কাদেরী বলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে যেকোনো অন্যায়ের প্রতিবাদ করা নৈতিক দায়িত্ব। এই দায়িত্ব নিয়েই আমরা একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলাম। সেই চেতনা থেকে যেখানেই কোনো অন্যায়-অত্যাচার হয় সেখানেই তার প্রতিবাদে সামিল হই।

রাকসু আন্দোলন মঞ্চের আহ্বায়ক আব্দুল মজিদ অন্তর বলেন, হলে সাধারণ শিক্ষার্থীদেরকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা প্রতিনিয়ত নির্যাতন করে চলেছে। বৈধভাবে হলে সিট পেলেও সেখান উঠতে দিচ্ছে না ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। সেই সিটগুলো দখল করে সিট বাণিজ্য করছে তারা। প্রতিনিয়ত ছাত্রদের কাছ থেকে পাওয়া অভিযোগ পেয়ে আমরা প্রশাসনকে বরাবর জানাচ্ছি কিন্তু কোনো প্রতিকার পাচ্ছি না। তারই প্রতিবাদে আমরা প্রতীকী অনশন করছি।

মনির হোসেন মাহিন/এফএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]