রাবিতে শিক্ষিকা লাঞ্ছিত, ছাত্রকে বহিষ্কারের দাবিতে বিক্ষোভ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০১:৩৩ পিএম, ২৯ জুন ২০২২

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) আইন বিভাগের ক্লাস চলাকালে শিক্ষিকাকে লাঞ্ছনার অভিযোগ উঠেছে একই বিভাগের মাস্টার্সের এক ছাত্রের বিরুদ্ধে। এর প্রতিবাদে বিভাগের সামনে বিক্ষোভ করছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (২৯ জুন) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একাডেমিক ভবনের আইন বিভাগের ২৪৪ নম্বর কক্ষে এমন ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত শিক্ষার্থী হলেন আশিক উল্লাহ। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, চতুর্থ বর্ষের ক্লাস চলাকালে আশিক উল্লাহ তার মাস্টার্সের পরীক্ষা নিয়ে কোনো সমস্যার কারণে শিক্ষিকার সঙ্গে ঝামেলা শুরু করেন। তাকে চেয়ারম্যানের কাছে যাওয়ার কথা বলে ক্লাস থেকে চলে যাচ্ছিলেন শিক্ষিকা। এ সময় ক্লাসের দরজা বন্ধ করে শিক্ষিকাকে আটকে দেন আশিক। ক্লাসে থাকা অন্য শিক্ষার্থীরা শিক্ষিকাকে বের করে বিভাগের চেয়ারম্যানের রুমে পৌঁছে দিয়ে আসেন। এ নিয়ে শিক্ষার্থীদেরও হুমকি দেন আশিক।

ঘটনার পর থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করতে থাকে শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের দাবি, অভিযুক্ত আশিক উল্লাহকে আজকের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করতে হবে এবং তাকে আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

RU-2

আইন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র মাসুদ রানা বলেন, ‘আমাদের ম্যাডামের অপমানের সঠিক বিচার আমরা আজকের মধ্যেই চাই। উপাচার্যের ক্ষমতাবলে সাতদিনের মধ্যে শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করতে পারেন। ওই আইনের আওতায় এনে আজকের মধ্যে তাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হোক। আইন বিভাগের সব শিক্ষার্থীর হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন মামলা দিয়ে তাকে শাস্তির আওতায় আনতে হবে। দাবি না মানা পর্যন্ত আমরা বিক্ষোভ চালিয়ে যাবো।’

এ বিষয়ে আইন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো হাসিবুল আলম প্রধান জাগো নিউজকে বলেন, ‘শিক্ষক লাঞ্ছিত করার মতো ঘটনা অবশ্যই অন্যায়। আমরা একাডেমিক জরুরি মিটিং ডেকেছি। সিদ্ধান্ত হলে জানাবো।

মনির হোসেন মাহিন/এসজে/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]