খুবি শিক্ষককে ‘নিপীড়নের’ সুষ্ঠু তদন্ত চেয়ে ৫১ শিক্ষকের বিবৃতি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:২১ এএম, ০১ জুলাই ২০২২
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

সম্প্রতি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে (খুবি) গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের এক শিক্ষককে নিপীড়নের ঘটনায় তদন্ত চেয়ে বিবৃতি দিয়েছে মিডিয়া এডুকেটরস নেটওয়ার্ক। বিবৃতিতে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫১ জন শিক্ষক সই করেছেন।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) গণযোগাযোগ বিভাগের শিক্ষকদের এই সংগঠনের পক্ষ থেকে সংবাদমাধ্যমে বিবৃতি পাঠানো হয়।

এতে বলা হয়, ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা ডিসিপ্লিনের একজন নারী শিক্ষক একই বিভাগের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি, শারীরিক ও মানসিক নিপীড়নের অভিযোগ করেন। সেসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন নিরোধ কমিটি অভিযোগটি আমলে নিয়ে তদন্ত শুরু করে। এই ঘটনায় অভিযুক্ত শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। কিন্তু ঘটনার ১০ মাস পর কমিটি বলছে, তারা সেই অভিযোগ আমলেই নেয়নি। তাদের বক্তব্য, ঘটনাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে ঘটেছে; ফলে তাদের তা এখতিয়ারভুক্ত নয়। একই সঙ্গে প্রতিবেদনটিতে তারা বলেন যে, এ ঘটনায় শারীরিক ও মানসিক নিপীড়নের প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তাদের সুপারিশের ভিত্তিতে গত ৮ জুন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট অভিযুক্ত শিক্ষকের বরখাস্তের আদেশ প্রত্যাহার করে।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন নিরোধ কমিটির প্রতিবেদন ও বক্তব্যে স্ববিরোধিতা রয়েছে। আমরা বলতে চাই, ঘটনাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে ঘটেছে বলে তদন্ত এড়ানোর সুযোগ নেই। যেহেতু দুজন শিক্ষকই খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরিজীবী, সেহেতু ঘটনাস্থল যেখানেই হোক না কেন; বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ঘটনাটির তদন্ত করতে হবে। তদন্তের মাধ্যমে অভিযোগ প্রমাণিত হলে অভিযুক্তকে যথাযথ শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। অভিযোগটি মিথ্যা হলে সেটিও তদন্ত করে খোলাসা করা হোক।

বিবৃতিতে সই করা শিক্ষকরা হলেন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. গীতি আরা নাসরিন, অধ্যাপক ড. কাবেরী গায়েন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক শাওন্তী হায়দার ও মোহাম্মদ খোরশেদ আলম, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ড. নজরুল ইসলাম,রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক কাজী মামুন হায়দার, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক মো. শহীদুল হক ও শাহাব উদ্দিন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক শাহ নিস্তার কবির, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক মো. মোজাম্মেল হোসেন বকুল ও শাতিল সিরাজ, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহবুবুল হক ভূঁইয়া, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালিজম ও মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শেখ আদনান ফাহাদ, গ্রিন ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের সহকারী অধ্যাপক মনিরা শারমিন, স্টেট ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের সহকারী অধ্যাপক নাসরিন আক্তারসহ আরও কয়েকজন শিক্ষক এই বিবৃতিতে সই করেন।

এমআইএস/জেডএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]