যথাযোগ্য মর্যাদায় বশেফমুবিপ্রবিতে জাতীয় শোক দিবস পালন

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৭:৪৬ পিএম, ১৫ আগস্ট ২০২২

জামালপুরে অবস্থিত বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বশেফমুবিপ্রবি) যথাযোগ্য মর্যাদায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে।

সোমবার (১৫ আগস্ট) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করার মধ্য দিয়ে শোক দিবসের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। জাতীয় সংগীত পরিবেশনের সঙ্গে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ।

কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ আবদুল মাননান বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা এবং বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সুশান্ত কুমার ভট্টাচার্য কালো পতাকা উত্তোলন করেন। পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

প্রথমে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে উপাচার্য বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতার প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ সময় কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ আবদুল মাননান, বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সুশান্ত কুমার ভট্টাচার্য, অর্থ ও হিসাব বিভাগের পরিচালক খান মো. অলিয়ার রহমান, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এসএমএ হুরাইরা, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন বিভাগের পরিচালক এবং প্রকল্প পরিচালক কর্নেল (অব.) কাজী শরীফ উদ্দিন, বিভিন্ন বিভাগের চেয়ারম্যানসহ শিক্ষকরা উপস্থিত ছিলেন।

পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের মির্জা আজম হল, নূরুন্নাহার বেগম হল, বশেফমুবিপ্রবি অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশন, সাংবাদিক সমিতি, ছাত্রলীগ পৃথকভাবে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতার প্রতিকৃতিতে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ সামসুদ্দিন আহমেদ।

বক্তব্যের শুরুতে উপাচার্য বলেন, বঙ্গবন্ধু বাঙালির মুক্তির স্বপ্নদ্রষ্টা ও স্বাধীনতার রূপকার। এই অবিসংবাদিত মহাপুরুষের দূরদর্শী, অকুতোভয় ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে সমগ্র বাঙালি জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে স্বাধীনতা সংগ্রামে ও মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। তার নেতৃত্বে আমরা পেয়েছি স্বাধীন দেশ এবং স্বাধীন জাতির মর্যাদা। বাংলাদেশি হিসেবে আমাদের গর্বিত অস্তিত্ব ও বিশ্ব পরিমণ্ডলে আমাদের গৌরবোজ্জ্বল পরিচিতি এ মহান নেতার অবদান।

আলোচনা পর্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মকর্তারা জাতীয় শোক দিবসের তাৎপর্য বিশ্লেষণ করেন এবং এই শোককে শক্তিতে রূপান্তর করে আরও উদ্যম ও দেশপ্রেম নিয়ে দেশের উন্নয়নে অধিকতর অবদান রাখার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেন রেজিস্ট্রার সৈয়দ ফারুক হোসেনসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

এদিকে জাতীয় শোক দিবসে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবসহ ১৫ আগস্টে নির্মম হত্যাকাণ্ডে শহীদদের স্মরণে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্যোগে বিশেষ দোয়া-মিলাদ মাহফিল ও দুস্থ-এতিম শিশুদের মাঝে খাদ্য বিতরণ করা হয়।

দিবসটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু কর্নারের উদ্যোগে দিনভর স্বাধীন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও জাতির পিতার সংগ্রাম আর জীবন-কর্ম নিয়ে ভিডিও তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয়। প্রচার করা হয় জাতির পিতার কালজয়ী ৭ মার্চের ভাষণ।

এসআর/এমএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।