ঢাবিতে বিশ্ব পর্যটন দিবস উদযাপন

ক্যাম্পাস প্রতিবেদক
ক্যাম্পাস প্রতিবেদক ক্যাম্পাস প্রতিবেদক Dhaka University
প্রকাশিত: ০৬:০৬ এএম, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২
কেক কেটে ও পায়রা উড়িয়ে ঢাবিতে বিশ্ব পর্যটন দিবসের কর্মসূচি উদ্বোধন করেন উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামান

jagonews 

'রিথিংকিং ট্যুরিজম’ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) বিশ্ব পর্যটন দিবস উদযাপন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্যায় শিক্ষা অনুষদ প্রাঙ্গণে ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের উদ্যোগে এটি উদযাপন করা হয়।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান প্রধান অতিথি হিসেবে কেক কেটে ও পায়রা উড়িয়ে দিবসটির বিভিন্ন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। পরে ক্যাম্পাসে একটি র‌্যালি বের করা হয়।

এসময় উপাচার্য ঢাবির ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শিক্ষদের উদ্দেশ্য করে বলেন, আপনাদের কারিকুলামে কিছু ঘাটতি আছে বলে আমার মনে হয়। নানা অনুসঙ্গের সংযোজন ঘটিয়ে কারিকুলাম পুনর্বিন্যাস করা খুব জরুরি। যাতে বাস্তবধর্মী, জীবনমুখী সব বিষয়ে ধারণা পেয়ে শিক্ষার্থীরা কর্মজীবনে প্রবেশ করতে পারে।

‘এটি না করলে 'রিথিংকিং ট্যুরিজম' হবে না। আমরা যদি যুগের চাহিদার সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে আমাদের শিক্ষার্থীদের গড়ে তুলতে না পারি, তাহলে পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে গুণগত মানের উন্নত পর্যটনশিল্পের বিকাশ ঘটানো সম্ভব হবে না।

ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের চেয়ারপারসন ড. সন্তোষ কুমার দেবের সভাপতিত্বে এসব কর্মসূচিতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. অলিউল্লাহ, প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. মো. আমিনুর রহমান ও বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. বদরুজ্জামান ভূঁইয়া।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ঢাবির ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের কো-অর্ডিনেটর ও এক্সিকিউটিভ এমবিএ ড. মো. শরিফুল আলম খন্দকার, হোটেল শেরাটন ও ওয়েষ্টিনের সিইও সাখাওয়াত হোসাইন ও ট্যুরিজম ডেভেলপার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সভাপতি সৈয়দ হাবিব আলী। অনুষ্ঠানের আহবায়কের দায়িত্ব পালন করেন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সামশাদ নওরীণ।

সভাপতির বক্তব্যে ড. সন্তোষ কুমার দেব বলেন, সারাবিশ্বের মতো ঢাবির ট্যুরিজম অ্যান্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগও যথাযোগ্য মর্যাদায় বিশ্ব পর্যটন দিবস উদযাপন করছে। আমরা দেখেছি, করোনায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পর্যটনশিল্প। আমরা যদি আগের অবস্থানে ফিরতে চাই, তাহলে আমাদের নতুনভাবে ভাবতে হবে।

‘নতুন ভাবনাটা কী? আমরা বলছি, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার যেসব লক্ষ্য রয়েছে তার মধ্যে তিনটি সরাসরি পর্যটনশিল্পের সঙ্গে সম্পৃক্ত। আমরা এ তিনটি লক্ষ্য বাস্তবায়নে জোর দেওয়ার কথাই বলছি।’

আল-সাদী ভূঁইয়া/এসএএইচ

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।