রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ফের দিনের বেলায় চলছে ট্রাক

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ১১:৩২ এএম, ০৪ অক্টোবর ২০২২

ক্যাম্পাসের ভেতরে ট্রাকচাপায় শিক্ষার্থী মাহমুদ হাবিব হিমেল নিহত হওয়ার পর শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে রাত ১২টার পর ভারী ট্রাক ক্যাম্পাসে প্রবেশ করানোর কথা বলেছিল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) প্রশাসন। তবে ওই ঘটনার কয়েকমাস যেতে না যেতেই সেই কথা রাখেনি প্রশাসন। সোমবার (৩ অক্টোবর) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত কোনো নিরাপত্তা প্রহরী ছাড়াই ক্যাম্পাসে ভারী ট্রাক চলাচল করতে দেখা গেছে।

জানা গেছে, গত ১ ফেব্রুয়ারি রাত ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্মাণাধীন বিজ্ঞান ভবনের সামনে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে শিক্ষার্থী মাহমুদ হাবিব হিমেল নিহত হন। ঘটনার পরপরই আন্দোলনে নামেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। সে সময় কয়েক দফা দাবির মধ্যে ক্যাম্পাসে ভারী ট্রাক প্রবেশ বন্ধ করা, পরিবারকে আর্থিক ক্ষতিপূরণের পাশাপাশি মাহমুদ হাবিব হিমেলের নামে বিজ্ঞান ভবনটির নামকরণের দাবি জানিয়েছিলেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীদের সে দাবি মেনে নিয়ে রাত ১২টার পরে ক্যাম্পাসে ট্রাক প্রবেশ করতে দেওয়ার কথা বলেছিল বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

তবে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত কয়েকদিন ধরে বিকেলে ও সন্ধ্যায় ক্যাম্পাসে ট্রাক প্রবেশ করছে। আগে কোনো ধরনের নিরাপত্তাকর্মী ছাড়াই ট্রাকগুলো ঢুকতো, এখন বাঁশি বাজিয়ে শিক্ষার্থীদের সাবধান করা হচ্ছে ট্রাকের আগে আগে। তবে সব সময় নিরাপত্তাকর্মীরা থাকেন না। নির্ধারিত সময়ের (রাত ১২টার পর) আগে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করায় কয়েকটি ট্রাক ঘুরিয়েও দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। তবে মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) সকালে ট্রাক ক্যাম্পাসে প্রবেশের সময় কোনো নিরাপত্তা কর্মীকে দেখা যায়নি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী শফিকুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, একজন শিক্ষার্থী মারা যাওয়ার পর এত আন্দোলন হলো। একটা দুর্ঘটনা এত মানুষের হৃদয়ে নাড়া দিয়ে গেলো। শিক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে উপাচার্য সব দাবি-দাওয়া মেনে নিলেন। কিন্তু কিছুদিন যেতে না যেতেই দিনে-দুপুরে নিরাপত্তাকর্মী ছাড়াই আবারও ক্যাম্পাসে ভারী ট্রাক ঢুকছে। এতে আমাদের বাকি দাবিগুলো পূরণ নিয়ে সংশয়ের সৃষ্টি হচ্ছে।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ফের দিনের বেলায় চলছে ট্রাক

নির্ধারিত সময়ের বাইরে ক্যাম্পাসে ভারী ট্রাক ঢুকানোকে ‘আশ্বাস ভঙ্গের সূত্রপাত’ উল্লেখ করে হিমেলের বিভাগের সহপাঠী মিঠুন চন্দ্র মহন্ত বলেন, কিছুদিন আগে আমাদের এক শিক্ষার্থীকে বিশ্ববিদ্যালয়ের হলের সামনের রাস্তায় একটি কনস্ট্রাকশন কোম্পানির পাথরবোঝাই ট্রাক চাপা দিয়ে হত্যা করেছে। সে সময় শিক্ষার্থীরা তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলেন। যেই আন্দোলনের কাছে নতি স্বীকার করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। তাৎক্ষণিকভাবে এবং পরবর্তীতে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বসে দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়। উপাচার্য স্যার তখন বলেছিলেন- শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা এবং রাস্তায় চলাচলের সুবিধার্থে ক্যাম্পাসে ভারী যানবাহন রাত ১২টার পর প্রবেশ করবে। কিন্তু হিমেলের মৃত্যুর কয়েকমাস অতিক্রম না হতেই ক্যাম্পাসে আবার ভারী ট্রাকগুলো ঢুকেছে। এটা শিক্ষার্থীদের সরল বিশ্বাসে এক প্রকার আঘাত বলা যায়। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উচিত অবিলম্বে শিক্ষার্থীদের প্রতিটি দাবি বাস্তবায়ন করা।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সুলতান-উল-ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, কড়া নিরাপত্তার মাধ্যমে মালবাহী ট্রাকগুলো যাতায়াত করছে। তবে তাদের নিদিষ্ট সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। আমি খোঁজ নিচ্ছি, এর ব্যতিক্রম ঘটলে এখনই পদক্ষেপ নেবো। নির্ধারিত সময়ের বাইরে ক্যাম্পাসে আর কোনো ট্রাক চলাচল করবে না।

মনির হোসেন মাহিন/এমআরআর/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।