রাবিতে পিঠার দাম কমায় খুশি শিক্ষার্থীরা

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক রাবি
প্রকাশিত: ০৬:০৬ পিএম, ২৯ নভেম্বর ২০২২

প্রকৃতিতে বইতে শুরু করেছে শীতের হাওয়া। আর শীত আসলেই পিঠা খাওয়ার ধুম পড়ে যায় ক্যাম্পাসগুলোতে। শীতের আগমনী বার্তায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) ক্যাম্পাসেও চলছে পিঠা খাওয়ার ধুম। সন্ধ্যা নামতেই শিক্ষার্থীদের ভিড়ে জমে ওঠে রাবির টিএসসিসি। পিঠার দাম ও মান নিয়েও সন্তুষ্ট শিক্ষার্থীরা।

আগে পিঠার দাম বেশি রাখতেন বলে শিক্ষার্থীদের অভিযোগ ছিল। শিক্ষার্থীদের অভিযোগের ভিত্তিতে ১৫ নভেম্বর 'শীতের আগমনে রাবিতে জমে উঠেছে পিঠার আড্ডা, দাম-মান নিয়ে প্রশ্ন’ শিরোনাম দেশের শীর্ষস্থানীয় পোর্টাল জাগো নিউজে প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর তা প্রশাসনের চোখে পড়ে। পরে প্রক্টরিয়াল বডি দোকানিদের সঙ্গে কথা বলে পিঠার নতুন দাম নির্ধারণ করেন। নতুন দাম কার্যকর হওয়ার পর স্বস্তি মিলছে শিক্ষার্থীদের মধ্যে।

চিতই পিঠা আগে আট টাকা বিক্রি হলেও এখন কমিয়ে ছয় টাকা হয়েছেন। ভাপা পিঠা ১৫ টাকা থেকে পাঁচ টাকা কমিয়ে ১০ টাকা, তেলের পিঠা ২০ টাকা থেকে কমিয়ে ১৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। পিঠার সঙ্গে আট পদের ভর্তার বাটি ১০ টাকায় বিক্রি করছেন দোকানিরা।

গণিত বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী জিন্নাতুন নূর মুক্তা বলেন, সারাদিন ক্লাস পরীক্ষা শেষে আমরা এখানে এসে মিলিত হই। সবাই মিলে পিঠা খাওয়ার মজাই অন্য রকম। বাড়িতে থাকলে হয়তো পিঠা খেতাম কিন্তু বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা জমিয়ে খাওয়ার সুযোগ হতো না।

সমাজবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী রুমানা ইসলাম বলেন, শীত আসলেই বাড়িতে পিঠা বানানোর কাজ শুরু হতো। এবার ক্যাম্পাস খোলা থাকায় মায়ের হাতের পিঠা খাওয়া হচ্ছে না। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের এসব দোকানে আমাদের মায়ের হাতের পিঠার কথা মনে করিয়ে দিচ্ছে। বিভিন্ন ভর্তাও পাওয়া যাচ্ছে এখানে।

অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষার্থী সফিকুল ইসলাম বলেন, বিকেল থেকে জমে ওঠে আমাদের টিএসসিসি। পাটি বিছিয়ে বন্ধুরা মিলে গরম গরম পিঠা খাওয়ার অনুভূতি একটু অন্যরকম। আমাদের ক্যাম্পাসের পিঠার আলাদা একটি সুনাম আছে।

পিঠা বিক্রেতা মানিক মিয়া বলেন, শিক্ষার্থীদের প্রচুর ভিড় হয়; ফলে বানিয়ে শেষ করতে পারি না আমরা। প্রতিদিন প্রায় ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার মতো পিঠা বিক্রি হয়। তবে জিনিসপত্রের দাম বাড়ার কারণে তেমন লাভ হয় না।

মনির হোসেন মাহিন/জেএস/এএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।