Jago News logo
ঢাকা, সোমবার, ২৭ মার্চ ২০১৭ | ১৩ চৈত্র ১৪২৩ বঙ্গাব্দ

সিলেট বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালকসহ ৩ কর্মকর্তা কারাগারে


নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

প্রকাশিত: ০৯:২৪ পিএম, ২০ মার্চ ২০১৭, সোমবার
সিলেট বিআরটিএ’র সহকারী পরিচালকসহ ৩ কর্মকর্তা কারাগারে

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা জালিয়াতি মামলায় বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) সিলেটের ৩ কর্মকর্তার জামিন নামঞ্জুর করা হয়েছে।

সোমবার বিকেলে সিলেট মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক আকবর হোসেন মৃধার আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে বিচারক তা নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

বিআরটিএর ওই তিন কর্মকর্তা হলেন, বিআরটিএ সিলেটের সহকারী পরিচালক এনায়েত হোসেন মন্টু, মোটরযান সহকারী কেশব কুমার ও উচ্চমান সহকারী আব্দুর রব।

আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট মফুর আলী জানান, একই দিন তারা চিফ মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন।

সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে আদালত তাদের আবেদনটি মহানগর দায়রা জজ আদালতে পাঠিয়ে দেন। আদালত আগামী ২ মে পরবর্তী তারিখ নির্ধারণ করেছেন।

কার্নেট সুবিধায় আনা গাড়ি সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে জালিয়াতির মাধ্যমে ১৭ লাখ টাকা ঘুস নিয়ে রেজিস্ট্রেশন করে দেন বিআরটিএ সিলেট অফিসের এ তিন কর্মকর্তা।

এ ঘটনায় তিন কর্মকর্তা ও প্রবাসীসহ মোট ৬ জনের বিরুদ্ধে গত ৬ ফেব্রুয়ারি মামলা দায়ের করেন দুদক ঢাকা অঞ্চলের উপপরিচালক ফরিদুর রহমান। কোতোয়ালি থানায় মামলাটি করা হয়।

বিআরটিএ সিলেটের এ তিন কর্মকর্তা ছাড়াও মামলার অপর আসামিরা হলেন, বিশ্বনাথ উপজেলার বাসিন্দা কার্নেট সুবিধায় গাড়ি আমদানিকারক ও বিক্রেতা প্রবাসী রুপা মিয়া, বিশ্বনাথ আওয়ামী লীগের সভাপতি পংকী খান ও গাড়ি ক্রয়কারী মহানগরের বাগবাড়ি এলাকার বাসিন্দা মুর্শেদ আলম বেলাল।

তবে মামলা দায়েরের পর জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত গাড়ি ক্রেতা মুর্শেদ আলম বেলালকে গ্রেফতার করেছে দুদক।

মামলার বরাত দিয়ে দুদক সূত্র জানায়, ২০১০ সালে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে কার্নেট সুবিধায় দেশে গাড়ি নিয়ে আসেন বিশ্বনাথের প্রবাসী রুপা মিয়া।

তিনি এই গাড়িটি মুর্শেদ আলম বেলালের কাছে ২৯ লাখ টাকায় বিক্রি করেন। এ কারণে সরকারের প্রায় পৌনে ২ কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি দেয়া হয়।

গাড়িটির ইঞ্জিন-চেসিস নম্বর ঘষামাজা করে রেজিস্ট্রেশন করে দেন সিলেট বিআরটিএ কর্মকর্তারা। এ জন্য ১৭ লাখ টাকা ঘুষ নেন সিলেট বিআরটিএ কর্মকর্তারা।

আর গাড়ি বিক্রি থেকে শুরু করে রেজিস্ট্রেশন করানোর মধ্যস্থতা করেন বিশ্বনাথ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি পংকী খান। তাই মামলায় তাকেও আসামি করা হয়।

ছামির মাহমুদ/এএম/আরআইপি

আপনার মন্তব্য লিখুন...