সন্তানদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই সেই মায়ের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৪:৩৮ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ০৭:০২ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭
সন্তানদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই সেই মায়ের

পুলিশ কর্মকর্তা তিন ছেলে ও শিক্ষিকা মেয়ের অবহেলায় ভিক্ষার পথ বেছে নেয়া সত্তরোর্ধ্ব অসুস্থ মনোয়ারা বেগম জানিয়েছেন, সন্তানদের বিরুদ্ধে তার কোনো অভিযোগ নেই। তার সব সন্তানই ভালো।

বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই বৃদ্ধা মা বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

এদিকে বৃদ্ধা মা মনোয়ারা বেগমের ভিক্ষাবৃত্তির ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন পুলিশের বরিশাল রেঞ্জের ডিআইজি মো. শফিকুল ইসলাম (বিপিএম)। বরিশালের পুলিশ সুপার মো. হাবিবুর রহমান প্রামাণিকের নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা আজাদ এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোফিজুল ইসলাম এই কমিটিতে রয়েছেন। আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে তাদের রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বরিশাল রেঞ্জ ডিআইজি অফিসের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে ডিআইজি মো. শফিকুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। এছাড়া এ বৃদ্ধা মায়ের চিকিৎসা এবং তার সব ব্যয়ভার পুলিশের পক্ষ থেকে বহন করা হবে।

ডিআইজি মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, আজ বৃদ্ধা মায়ের পাঁচ ছেলেকে ডিআইজি কার্যালয়ে ডেকে এ বিষয়ে তাদের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। ৮ শতাংশ জমিজমা নিয়ে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে বৃদ্ধা মায়ের এই পরিস্থিতি বলে ছেলেদের পক্ষ থেকে জানানো হয়। তবে তারা সবাই অনুতপ্ত এবং মায়ের দায়িত্ব গ্রহণে সম্মতির কথা জানিয়েছেন।

এদিকে পুলিশে চাকরিরত তিন ছেলে জানান, তাদের মা ভিক্ষে করেননি। ৮ শতাংশ জমি নিয়ে বিরোধের জেরে তাদের হেয় করার জন্য তাদেরই ছোট ভাই এ ঘটনা সাজিয়েছে। এর আগে ওই ভাইয়ের সঙ্গে তাদের জমি নিয়ে মারামারি হয়েছিল এবং একটি মামলাও হয়েছে।

তবে এমন অভিযোগ অস্বীকার করে অপর ভাই অটোরিকশাচালক গিয়াসউদ্দিন বলেন, দারিদ্র্যের কারণে তার মা ভিক্ষে করেছেন। তার খবর অন্য ভাইয়েরা নিত না।

এতো কিছুর পরও বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের চতুর্থ তলায় অর্থোপেডিক বিভাগের ৪০৩ নম্বর কক্ষে বি-১৩ নং বেডে চিকিৎসাধীন বৃদ্ধা মা মনোয়ারা বেগমের কোনো অভিযোগ নেই কোনো ছেলের বিরুদ্ধে। তার সব সন্তানই ভালো বলে তিনি জানিয়েছেন।

এর আগে গত সোমবার জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কম- এ মনোয়ারা বেগমকে নিয়ে ‘৩ ছেলে পুলিশ, তবুও ভিক্ষা করেন মা’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়।

সংবাদটি প্রকাশের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ায় ওই বৃদ্ধার জন্য অনেকে কষ্ট প্রকাশ করে ছেলেদের শাস্তি দাবি করেন।

এদিকে ঘটনাটি জানতে পেরে মনোয়ারা বেগমের উন্নত চিকিৎসার পাশাপাশি বৃদ্ধা মায়ের প্রতি অবহেলার কারণে পুলিশ কর্মকর্তা তিন ছেলে এবং শিক্ষিকা মেয়ের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বরিশাল জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও ইউএনও’র সঙ্গে কথা বলেন স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট শেখ মো. টিপু সুলতান। তার নির্দেশে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হয় অসুস্থ মনোয়ারা বেগমকে। এরপর ঘটনাটি নিয়ে পুলিশ বিভাগে তোলপাড় শুরু হয়।

খবর পেয়ে পুলিশের বরিশাল রেঞ্জের ডিআইজি, এসপি এবং জেলা প্রশাসক তাকে দেখতে যান এবং তিনজন মোট ৩৭ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন। সমাজসেবা অধিদফতর বৃদ্ধা মনোয়ারা বেগমের ওষুধের খরচ বহন করছে। এ ঘটনায় ইতোমধ্যে বৃদ্ধার একমাত্র কন্যাসন্তান পূর্ব ভুতেরদিয়া নবারুন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মরিয়ম সুলতানাকে মায়ের প্রতি অবহেলা করার জন্য কেন আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে না- মর্মে উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে।

সাইফ আমীন/আরএআর/আইআই