রাজশাহীতে প্রথম ফ্লাইওভার হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী
প্রকাশিত: ০৭:২৪ পিএম, ১৮ জানুয়ারি ২০১৮

রাজশাহী নগরীতে প্রথম ফ্লাইওভার নির্মাণ কাজের চুক্তি সই হয়েছে। বৃহস্পতিবার নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান ডিনকো লিমিটেডের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক চুক্তি সই করেছে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক)। দুপুরে রাসিকের জিআইজেড সভাকক্ষে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

সেখানেই রাসিকের পক্ষ থেকে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী খন্দকার খায়রুল বাশার চুক্তিতে সই করেন। ডিয়েনকো লিমিটেডের পক্ষে চুক্তিপত্রে সই করেন প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক খোরসেদ আলম।

রাজশাহী নগরীর রাজশাহী-নওগাঁ প্রধান সড়ক হতে মোহনপুর, রাজশাহী হতে নাটোর সড়ক পর্যন্ত পূর্ব-পশ্চিম সড়ক নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় নির্মাণ হচ্ছে ফ্লাইওভারটি।

একই সঙ্গে ওই প্রকল্পের চার লেন রাস্তা নির্মাণকাজের অবশিষ্ট অংশেরও চুক্তি সই হয়েছে। রাসিকের পক্ষে এ চুক্তিও সই করেন প্রকৌশলী খন্দকার খায়রুল বাশার। আর নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান এমবিআইএল-আরই (জেভি) এর পক্ষে সই করেন তৌরিদ আল মাসুদ।

রাসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ্ মোমিনের সভাপতিত্বে ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল।

অনুষ্ঠানে প্রকল্পের সার্বিক তথ্য উপস্থাপন করেন প্রধান প্রকৌশলী মো. আশরাফুল হক। বক্তব্য রাখেন, রাসিকের নগর অবকাঠামো নির্মাণ ও সংরক্ষণ স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মনসুর রহমান।

এসময় আগামী ২০৫০ সালের মধ্যেই রাজশাহী আধুনিক নগরীতে রুপান্তরের আশাবাদ ব্যক্ত করেন মেয়র। তিনি বলেন, আমরা নাটোর নওগাঁ সড়কের মধ্যে একটি বন্ধন তৈরি করতে যাচ্ছি। এ প্রকল্পে ফ্লাইওভার ও চার লেন রাস্তা নির্মাণ সম্পন্ন হলে নগরীর ট্রাফিক ব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটবে।

এসময় কাজের গুণগতমান বজায় রেখে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে প্রকল্প বাস্তবায়নে ঠিকাদারদের নির্দেশ দেন মেয়র। আধুনিক ও বাসযোগ্য নগরী গড়তে সবার সহায়তাও চান।

রাসিক জানিয়েছে, বাস্তবায়নাধীন এ প্রকল্পে মোট ব্যয় ১৮২ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। এ প্রকল্পের আওতায় নগরীর রাস্তার জন্য প্রথম পর্যায়ে ২০ কোটি টাকা এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে সংশোধিত ২৪ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়েছে। এছাড়া বুধপাড়া রেলক্রসিং স্থানে ফ্লাইওভার নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে ২৯ কোটি ২৮ লাখ ৭৭ হাজার ৫৩২ টাকা। এ প্রকল্পের অবশিষ্ট টাকা ব্যয় হচ্ছে জমি অধিগ্রহণ ও ভৌত অবকাঠামো নির্মাণে ব্যয়। স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে রাস্তবায়ন হচ্ছে প্রকল্পটি।

ফেরদৌস সিদ্দিকী/এমএএস/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :