বাঁশের তৈরি শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানালো শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী
প্রকাশিত: ০৯:৩১ পিএম, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

শহীদ মিনার নেই রাজশাহীর তানোর উপজেলার চাঁদপুর নম্বর উচ্চ বিদ্যালয়ে। একই আঙিনায় অবস্থিত চাঁদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও চাঁদপুর দাখিল মাদরাসাতেও নেই শহীদ মিনার।

কিন্তু থেমে নেই শহীদদের শ্রদ্ধা জানানো। এবার বাঁশ ও রঙিন কাগজে শহীদ মিনার নির্মাণ করে তাতেই শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন এলাকাবাসীও।

বুধবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, অস্থায়ী শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের স্মরণ করেছে ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। তাদের সঙ্গে রয়েছেন শিক্ষকরাও। প্রথমবারের মতো এ মিছিলে যোগ দিয়েছেন স্থানীয় লোকজন।

চাঁদপুর ২ নম্বর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আব্দুল মালেক ও রাজবুল ইসলামের ভাষ্য, তাদের বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নেই। একুশে ফেব্রুয়ারি, ২৬ মার্চ ও ১৬ ডিসেম্বরে তারা শ্রদ্ধা নিবেদন করে প্রতীকী শহীদ মিনারে।

এবার ভাষা আন্দোলনে শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে দুদিন আগে থেকে শহীদ মিনার তৈরিতে হাত দিয়েছে তারা। শিক্ষকদের সহায়তায় শিক্ষার্থীরা এ মিনার গড়েছে। একসঙ্গে সবাই তাতে শ্রদ্ধাও জানিয়েছে।

বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক আবু হেনা মো. কামরুজ্জামান বলেন, শহীদ মিনার না থাকায় তারা দেয়ালে শহীদ মিনার একে শ্রদ্ধা জানিয়ে আসছিলেন। কিন্তু এবার কয়েকজন সহকারী শিক্ষক শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বাঁশ ও কাগজের শহীদ মিনার তৈরি করেছেন।

কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার না থাকার কথা স্বীকার করেছেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমিরুল ইসলাম ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শামীম আহম্মেদ।

তারা জানান, যেসব প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই সেসব প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা অস্থায়ী মিনার বানিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে আসছে। তবে প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মাণে প্রধানদের চিঠি দেয়া হয়েছে।

জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহা. শওকাত আলী জানান, প্রতিনিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অবকাঠামো উন্নয়নে সরকারি বরাদ্দ দেয়া হয়। প্রতিষ্ঠান সংশ্লিষ্টরা চাইলে তা থেকে শহীদ মিনার নির্মাণ করতে পারেন। তাছাড়া ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এবং সংসদ সদস্য শহীদ মিনার নির্মাণে বরাদ্দ দিতে পারেন বলেও জানান তিনি।

ফেরদৌস সিদ্দিকী/এএম/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :