মৃত্যুও আলাদা করতে পারেনি তাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ১০:০৬ পিএম, ১৪ মার্চ ২০১৮

প্রায় ৬০ বছরের দাম্পত্য জীবনে কেউ কাউকে ছেড়ে একদিনের জন্যও দূরে থাকেননি। তাই মৃত্যুও তাদের আলাদা করতে পারেনি। শেষ যাত্রায় একে-অপরের সঙ্গী হয়েছেন তারা।

বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলায় অসুস্থ স্ত্রী মারা যাওয়ার ২০ মিনিটের মাথায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছেন এক সুস্থ স্বামী। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার দেহেরগতি ইউনিয়নের রাকুদিয়া গ্রামে ঘটেছে এ হৃদয়স্পর্শী ঘটনা।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এই প্রবীণ দম্পতিকে শেষবারের মতো একনজর দেখার জন্য সকাল থেকে শত শত মানুষ তাদের বাড়িতে ভিড় করেন।

মঙ্গলবার বাদ আসর জানাজা শেষে এ দম্পতিকে তাদের পারিবারিক কবরস্থানে পাশাপাশি দাফন করা হয়। প্রায় ৬০ বছরের দাম্পত্য জীবনে তাদের ৪ ছেলে এবং ৩ মেয়ে ছাড়াও অনেক নাতি-নাতনি রেখে গেছেন ওই দম্পতি।

স্থানীয়রা জানান, রাকুদিয়া গ্রামের কৃষক মুনসুর আলী হাওলাদারের (৮৫) স্ত্রী নুরজাহান বেগম (৭৫) দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন। বাড়িতে শয্যাশায়ী স্ত্রীর সেবাযত্ন নিজ হাতেই করতেন তিনি।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নুরজাহান বেগম মারা যান। স্ত্রী বিয়োগের শোক সইতে না পেরে এ ঘটনার ২০ মিনিটের মাথায় হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন মুনসুর আলী হাওলাদার। মর্মান্তিক এ ঘটনায় চাঞ্চল্যের পাশাপাশি রাকুদিয়া এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

প্রয়াত এ দম্পতির ছেলে আনোয়ার হাওলাদার জানান, আমৃত্যু তার বাবা-মায়ের মধ্যে ভীষণ মিল ও মধুর সম্পর্ক বিদ্যমান ছিল। জীবদ্দশায় তারা একদিনের জন্যও কেউ কাউকে রেখে দূরে থাকেননি। তার মা বেশ কিছুদিন ধরে অসুস্থ থাকলেও বাবার তেমন কোনো রোগ ছিল না। ছেলে-মেয়েরা মায়ের সেবাযত্ন করতে চাইলেও বাবা নিজের হাতেই মায়ের সেবা করতে বেশি পছন্দ করতেন।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেন জানান, বহু বিয়ে আর পরকীয়ার মতো নৈতিক স্খলনের এই যুগে তারা দাম্পত্য প্রেমের অমর দৃষ্টান্ত।

সাইফ আমীন/এএম/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :