শাবির সাবেক শিক্ষার্থীকে খুনের বর্ণনা দিলো আতিক

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক সিলেট
প্রকাশিত: ০৯:০৫ পিএম, ২৮ মার্চ ২০১৮

ছিনতাইকালে বাধা দেয়ায় শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মাহিদ আল সালামকে ছুরিকাঘাত করে খুন করা হয়েছে। তাকে ছুরিকাঘাতের পর মোবাইল ও মানিব্যাগ ছিনতাই করে নেয়া হয়।

বুধবার বিকেলে সিলেট মহানগর হাকিম ১ম আদালতের মামুনুর রশিদ সিদ্দিকীর এজলাসে দণ্ডবিধির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে চাঞ্চল্যকর এ তথ্য জানায় কুখ্যাত ছিনতাইকারী একাধিক মামলার আসামি মির্জা আতিক।

এ ঘটনায় মির্জা আতিক আদালতে স্বীকারোক্তি দিলেও রিপন স্বীকার না করায় তার ৭ দিনের রিমাণ্ড আবেদন করা হয়। শুনানি শেষে বিচারক তার ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আদালতে আতিকের দেয়া জবানবন্দির বরাত দিয়ে দক্ষিণ সুরমা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ফজল বলেন, গত রোববার (২৫ মার্চ) রাতে আতিক, তায়েফ মোহাম্মদ রিপনসহ চার ছিনতাইকারী কিনব্রিজের দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত ফুয়াদ রেস্টুরেন্টে বসেছিল। এমন সময় রিকশাযোগে একটি ছেলেকে মোবাইলে কথা বলে আসতে দেখে তারা।

দুই মোটরসাইকেলে তারা চারজন ছিনতাইকারী রিকশার গতিরোধ করে। ছিনতাইকালে বাধা দেয়ায় মাহিদের উরুতে ছুরিকাঘাত করে মোবাইল ও মানিব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যায় তারা।

হত্যাকাণ্ডের পর ২৬ মার্চ (সোমবার) সিসিটিভির ফুটেজ দেখে চার ছিনতাইকারীকে শনাক্ত করে পুলিশ। গত মঙ্গলবার (২৭ মার্চ) মধ্যরাতে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের চাচা সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এটিএম হাসান জেবুল বাদী হয়ে আতিক রিপনসহ চারজনের নামোল্লেখ করে মামলা করেন।

পরে বুধবার ভোরে অভিযান চালিয়ে মির্জা আতিক ও তায়েফ আহমদ রিপনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মির্জা আতিক সিলেটের দক্ষিণ সুরমার ভার্তখলা ৬১ নম্বর বাসার মির্জা মকবুলের ছেলে। তায়েফ মোহাম্মদ রিপন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার কসবা গ্রামের বাসিন্দা ইউনুস আলীর ছেলে। বর্তমানে সে নগরের কাজিরবাজার পুলিশ স্টাফ কোয়ার্টারে থাকেন।
গ্রেফতারের পর পুলিশের কাছে তারা ছিনতাই করতে গিয়ে মাহিদকে হত্যার বর্ণনা দেয়।

ওসি খায়রুল ফজল আরও বলেন, এ ঘটনায় জড়িত অপর দুই ছিনতাইকারীর নাম বলেছে মির্জা আতিক। তাদের গ্রেফতার ও ছিনতাই কাজে ব্যবহৃত ছুরি এবং মোটরসাইকেল উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।

গত ২৫ মার্চ রাতে ঢাকা রওয়ানা হওয়ার পথে নগরের সংলগ্ন দক্ষিণ সুরমায় দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে খুন হন মাহিদ আল সালাম। তিনি নগরের মদিনা মার্কেট এলাকার প্রয়াত অ্যাডভোকেট আব্দুস সালামের ছেলে ও শাবিপ্রবির অর্থনীতি বিভাগের মাস্টার্সের ছাত্র ছিলেন।

ছামির মাহমুদ/এএম/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :