পাঁচটার মধ্যে শেষ করতে হবে বর্ষবরণ, বাজবে না ভুভুজেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক চট্টগ্রাম
প্রকাশিত: ০৫:৪৪ পিএম, ১২ এপ্রিল ২০১৮

১৪২৫। বাংলা বর্ষবরণে নগরীর বিভিন্ন স্থানে আয়োজিত অনুষ্ঠান বিকেল পাঁচটার মধ্যে শেষ করার নির্দেশ দিয়েছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)।

বৃহস্পতিবার সকালে সিএমপি সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ নির্দেশনার কথা জানান সিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অপরাধ ও অভিযান) আমেনা বেগম।

সংবাদ সম্মেলনে আমেনা বেগম বলেন ‘এবার নগরীর ডিসি হিল, সিআরবির শিরীষতলা, এমএ আজিজ স্টেডিয়াম, পতেঙ্গা সী-বীচ এলাকাসহ নগরীর ১৬টি থানা এলাকায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের উদ্যোগে পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। এসব এলাকায় নিরাপত্তার জন্য সিএমপির পুলিশ প্রশাসন প্রস্তুত রয়েছে। তবে নিরাপত্তার স্বার্থে বর্ষবরণের সকল অনুষ্ঠান বিকেল ৫টার মধ্যে শেষ করে অনুষ্ঠানস্থল থেকে দর্শনার্থীদের চলে যেতে হবে।’

দর্শনার্থীকে আর্চওয়ে গেট দিয়ে প্রবেশ বাধ্যতামূলক জানিয়ে আমেনা বেগম আরও বলেন, ‘নগরীর ডিসি হিলের অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশের জন্য বৌদ্ধ মন্দিরের সামনে ও পাহাড়িকা স্কুলের সামনে দুটি আর্চওয়ে থাকবে। পাশাপাশি বোস ব্রাদার্স, এনায়েত বাজার মহিলা কলেজ রোড, লাভলেইন রোড, মমিন রোডের নির্ধারিত স্থান থেকে গাড়ি চলাচল থাকবে। এসব এলাকার নির্ধারিত পয়েন্ট থেকে ডিসি হিলের অনুষ্ঠানস্থলে দর্শনার্থীদের পায়ে হেঁটে আসতে হবে।’

‘অন্যদিকে নগরীর সিআরবি শিরীষতলায় বর্ষবরণ ও বিদায়ে অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশের জন্য উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় মোড়, সিআরবি পুলিশ ফাঁড়ির সামনে, টাইগার পাসের কাঠের বাংলো রোডে ৬ টি আর্চওয়ে গেইট থাকবে। পাশাপাশি এসব এলাকার নির্ধারিত স্থান থেকে গাড়ি চলাচল থাকবে। এসব এলাকার নির্ধারিত পয়েন্ট থেকে সিআরবির শিরীষতলার অনুষ্ঠানস্থলে দর্শনার্থীদের পায়ে হেঁটে ঢুকতে হবে বলে তিনি জানান।

তিনি আরও জানান, অনুষ্ঠানস্থলে কোনো ‌‌ভুভুজেলা ব্যবহার করা যাবে না, বাজি, পটকা বহন ও ফোটানো নিষিদ্ধ। বড় ব্যাগ, পোটলা ব্যবহার করা যাবে না। অনুষ্ঠানস্থলে কোনো পানির বোতলও বহন করা যাবে না। ডিসি হিল ও সিআরবিতে সিমএমপি পুলিশ কমিশনারের নিজ উদ্যোগে পানির ব্যবস্থা থাকবে। অনুষ্ঠানে তিন স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থায় তিন হাজার পুলিশ সদস্য দায়িত্বে থাকবে তিনি জানান।

এ ছাড়াও অনুষ্ঠানস্থলে নিরাপত্তার স্বার্থে সিসি ক্যামেরা বসানোর পাশাপাশি পুলিশের সোয়াট ও বোম্ব ডিসপোজাল টিম প্রস্তুত থাকবে।

সংবাদ সম্মেলনে নগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ কমিশনার হাসান মোহাম্মদ শওকত আলী, নগর পুলিশের উপ কমিশনার (দক্ষিণ) এসএম মোস্তাইন হোসেন, অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) শাহ মোহাম্মদ আবদুর রউফ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, চট্টগ্রাম নগরীর নজরুল স্কয়ার (ডিসি হিল), সিআরবির শিরীষতলা, লারদিঘি ময়দান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্তত ৫০ টি পয়েন্টে পৃথকভাবে বৈশাখী মেলা উদযাপনের প্রস্তুতি নিচ্ছে চট্টলাবাসী।

আবু আজাদ/এসআর/পিআর