বদলে দেবেন লিটন, সুযোগ চান বুলবুল

ফেরদৌস সিদ্দিকী , নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী
প্রকাশিত: ০৯:০৫ পিএম, ১৩ জুলাই ২০১৮

উন্নয়ন ও নাগরিক সেবায় রাজশাহী নগরীকে পুরোপুরি বদলে দিতে চান ক্ষমতাশীন আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। অপরদিকে, গত মেয়াদে মেয়র নির্বাচিত হয়েও কর্পোরেশনে বসতে না পারায় নগরীর উন্নয়নে আবারও সুযোগ চান বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল।

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) নির্বাচনে আনুষ্ঠানিক প্রচার শুরুর পর থেকেই নানান কৌশলে এ দুই প্রার্থী ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা করছেন। নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এবং ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল অংশ নিয়েছে। এর বাইরেও আরও তিন মেয়র প্রার্থী রয়েছেন ভোটের মাঠে।

তবে প্রচার-প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছেন এ দুই প্রার্থী। সকাল-সন্ধ্যা চোষে ফিরছেন ভোটের মাঠ। বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটারদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করছেন। নানান প্রতিশ্রুতি দিয়ে চাইছেন ভোট।

এদিকে, লিটনের প্রচারণায় প্রাধান্য পাচ্ছে নগরীর উন্নয়ন। তিনি সদ্য বিদায়ী মেয়রের ব্যর্থতা ও অযোগ্যতাকে ফলাও করে প্রচার করছেন। সকারের উন্নয়ন ধারাবাহিকতাও তুলে ধরছেন লিটন।

Rajshahi-(2

আর বিএনপির মেয়র প্রার্থী ও সদ্য বিদায়ী মেয়র বুলবুলের প্রধান ইস্যু মেয়াদের আড়াই বছর কর্পোরেশনে থাকতে না দেয়া। প্রচারণায় এ ইস্যু এনে ভোটারদের মন গলানোর চেষ্টা করছেন তিনি। একই সঙ্গে উন্নয়ন ধারাবাহিকতা রক্ষায় অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করার সুযোগও চান বুলবুল।

বুলবুলের প্রচারণায় বিএনপিসহ ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের ওপর সরকারের চলমান দমন-পীড়নের মতো জাতীয় রাজনৈতিক ইস্যুও প্রাধান্য পাচ্ছে।

মঙ্গলবার সকাল থেকে শুরু হয়েছে নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচার-প্রচারণা। প্রচারপত্রে একচ্ছত্র আধিপত্য লিটনের। পাড়া-মহল্লা অলিগলি সবখানেই ছেয়ে গেছে নৌকা প্রতীকের পোস্টার, ব্যানার ও ফেস্টুনে।

কর্মীরা হাতে হ্যান্ডবিল নিয়ে দল বেঁধে নেমেছেন ভোট প্রচারে। নগরীর উন্নয়নে লিটনকে আবার দরকার-এটিই প্রচার করছেন তারা। ভোটারদের কাছে গিয়ে তারা বলছেন, আধুনিক পরিচ্ছন্ন নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে পারেন শুধু লিটন।

Rajshahi-(2

দুপুর দুটা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত নগরজুড়ে চলছে মাইকিংও। লিটনের উন্নয়ন ফিরিস্তি আর কোরাস গানের সুরে সুরে বলা হচ্ছে ‘উন্নয়ন করেছেন লিটন ভাই, মেয়র পদে তাকে চাই।’

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত নগরীর আসাম ও শিরোইল কলোনী এলাকায় গণসংযোগ করেন এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এসময় এলাকায় মিছিলও বের করেন নৌকা প্রতীকের কর্মীরা। পরে শিরোইল কলোনী বায়তুল মামুর জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করেন তিনি। নামাজ শেষে মসুল্লিদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন তিনি।

এসময় লিটন বলেন, পুনরায় মেয়র নির্বাচিত হলে রাজশাহীকে প্রকৃতপক্ষে দেশের শিক্ষানগরী হিসেবে গড়ে তোলা হবে। শিল্প-কলকারখানা গড়ে তুলে লক্ষাধিক মানুষের কর্মসংস্থান করা হবে।

লিটন অভিযোগ করেন, বিএনপি মিথ্যাচার, অপপ্রচার, সংখ্যালঘু ভোটারদের হুমকি দিচ্ছে। এসব বিষয়ে ইসিতে ইতোমধ্যে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। আমরা শেষ দিন পর্যন্ত এমন পরিবেশ দেখতে চাই।

Rajshahi-(2

অন্যদিকে, শুক্রবার দিনভর নগরীর ২৬ ও ২৭ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করেন মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল। এসময় বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলনসহ শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন। নেতাকর্মীদের নিয়ে বুলবুল বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট প্রার্থনা করেন।

শুক্রবার গণসংযোগ করেছেন গণমঞ্চ ও গণসংহতি আন্দোলন সমর্থিত প্রার্থী অ্যাডভোকেট মুরাদ মোর্শেদ। পরিবর্তনের অঙ্গিকার নিয়ে হাতি প্রতীকের এই প্রার্থী ভোটের মাঠে রয়েছেন। নগরীর ২৮ ও ১৬ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগে অংশ নেন গণসংহতি আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকিও।

এদিন প্রচারণা চালিয়েছেন হাতপাথা প্রতীক নিয়ে ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের মেয়র প্রার্থী শরিফুল ইসলাম এবং কাঁঠাল প্রতীক নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) মেয়র প্রার্থী হাবিবুর রহমান। তারাও ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে নানান প্রতিশ্রুত দিচ্ছেন।

ফেরদৌস সিদ্দিকী/এমএএস/পিআর