নারায়ণগঞ্জে শিশু আলিফ হত্যার ঘটনায় মামলা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নারায়ণগঞ্জ
প্রকাশিত: ১১:৪৫ পিএম, ১৭ আগস্ট ২০১৮

নারায়ণগঞ্জের জল্লারপাড় এলাকায় শিহাবউদ্দিন আলিফ (৫) নামে এক শিশুকে হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে। এতে প্রতিবেশী অহিদ ও রিপন ওরফে সম্রাটকে আসামি করা হয়। এদের মধ্যে রিপন গ্রেফতার হয়েছে, আর অহিদ এখনও পলাতক।

শুক্রবার নিহতের বাবা আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানায় মামলা করেন।

গত বৃহস্পতিবার বিকেলে শহরের জল্লারপাড় আমহাট্টা এলাকার নান্নু মিয়ার একটি ঘর থেকে শিশু আলিফের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ওই ঘরেই ভাড়া থাকতো অহিদ ও রিপন। তারা মূলত রাজমিস্ত্রীর সহকারী হিসেবে কাজ করতো। শিশু আলিফকে চকলেট কিনে দেয়ার কথা বলে ডেকে নেয় অহিদ। এরপর রুমে নিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে বস্তাবন্দি অবস্থায় মরদেহ ফেলে পালিয়ে যায় তারা।

নিহত শিহাবউদ্দিন আলিফ শহরের জল্লারপাড় এলাকার আলমগীর হোসেনের ছেলে। আলমগীর সৌদি প্রবাসী। ঈদের ছুটিতে গত বুধবার রাতে আলমগীর দেশে ফিরেন।

এলাকাবাসী জানায়, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে নিখোঁজ হয় আলিফ। দুপুরের দিকে পাশের ঘরের ভাড়াটিয়া পিংকীর ছোট ছেলে সাকিব জানায়, সকালে একসঙ্গে সাকিব ও আশপাশের কয়েকটি ঘরের আরও কিছু বাচ্চাদের সঙ্গে খেলছিল আলিফ। এমন সময় অহিদ এসে চকলেট দেয়ার কথা বলে ডেকে নিয়ে যায়। সাকিবের দেয়া তথ্যের ওপর ভিত্তি করে আলিফের পরিবার ছুটে যায় অহিদ ও রিপনের ঘরে। সেখানে একটি বস্তা দেখে তাদের সন্দেহ হয়। বস্তা খুলতেই সেখানে দেখা যায় ভাঙা ইট ও কংক্রিটের টুকরো। কিন্তু বস্তার নিচে হাত দিতেই তাদের সন্দেহ হয় নিচে কংক্রিট বা ইটের টুকরো নয়। অপেক্ষাকৃত নরম কিছু রয়েছে। এক সময় বস্তার সমস্ত কংক্রিট মেঝেতে ঢালতেই বেরিয়ে আসে শিশু আলিফের মরদেহ।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) অজয় কুমার পাল জানান, নিহতের বাবা বাদী হয়ে অপহরণ ও হত্যা মামলা করেছেন। এতে আটক রিপন ওরফে সম্রাটকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। এছাড়া আরও কয়েকজন অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। হত্যার রহস্য উদঘাটনে চেষ্টা চলছে।

শাহাদাত হোসেন/জেএইচ

 

আপনার মতামত লিখুন :