টাঙ্গাইলে আবারও বাসে ‘দলবেঁধে ধর্ষণ’

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি টাঙ্গাইল
প্রকাশিত: ০৪:২২ এএম, ০১ সেপ্টেম্বর ২০১৮

টাঙ্গাইলে চাঞ্চল্যকর রুপা গণধর্ষণ ও হত্যার ঘটনার বছর না ঘুরতেই ফের বাসে প্রতিবন্ধী এক তরুণীকে গণধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।

ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু সেতু থানা পুলিশ।

এ ঘটনায় ওই বাসের হেলপার নাজমুলকে (২২) গ্রেফতার করা হয়েছে। তিনি ভূঞাপুরের ৩নং পুনর্বাসন এলাকার আতোয়ার রহমানের ছেলে। তবে সুপারভাইজার বিষু ও চালক আলম এখনও পলাতক রয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন জানান, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় টাঙ্গাইল থেকে ছেড়ে আসা একটি বাস যাত্রী নিয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্বপাড় বাসস্ট্যান্ডে পৌঁছায়। সবাই নেমে যাওয়ার পরও বাসস্ট্যান্ডে থাকা গাড়িটিতে প্রায় ২৮ বছরের এক প্রতিবন্ধী তরুণী বসেছিলেন।

ফাঁকা বাসে ওই তরুণীকে একা পেয়ে ধর্ষণ করে বাসচালক, সুপারভাইজার ও হেলপার। এ সময় ওই তরুণীর চিৎকার শুনে মহাসড়কে টহলরত পুলিশ থেমে থাকা বাসটি থেকে হাতেনাতে হেলপারকে ধরতে সক্ষম হয়। তবে চালক ও সুপারভাইজার বাস থেকে পালিয়ে যায়।

এ সময় ওই তরুণীকে উদ্ধার করে হেফাজতে রাখে পুলিশ। কিন্তু মেয়েটি তার কোনো নাম ঠিকানা বলতে না পারায় সে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী হতে পারে বলে ধারণা করছে পুলিশ। যে কারণে এখনও তার পরিচয় পাওয়া যায়নি।

তবে শুক্রবার এ ঘটনায় গ্রেফতার হেলপারকে টাঙ্গাইল কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তিনি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দিয়েছেন।

জবানবন্দিতে হেলপার নাজমুল ধর্ষণে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করলেও বাসচালক আলম এ ধর্ষণের ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানিয়েছেন।

ওসি আরও জানান, ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এছাড়াও ধর্ষণের শিকার ওই তরুণীর নাম পরিচয় বা ঠিকানা না পাওয়ায় শারীরিক পরীক্ষা শেষে শনিবার বিকেলে কারাগারে হস্তান্তর করা হবে।

আরিফ উর রহমান টগর/এফএ/এমএস