ঠাকুরগাঁওয়ে মাম ক্লিনিকে সিজারিয়ান প্রসূতির মৃত্যু

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ঠাকুরগাঁও
প্রকাশিত: ০২:০৩ এএম, ২০ অক্টোবর ২০১৮

ঠাকুরগাঁওয়ে মাম হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার নামে একটি বেসরকারি ক্লিনিকে প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে।

ক্লিনিক ও রোগীর স্বজনরা জানান, পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় আব্দুল্লাহ আল মামুনের স্ত্রী নাজমুন নাহারকে (৩১) বৃহস্পতিবার রাত ৩টায় সিজার করেন ডা. হামিদুর রহমান। শুক্রবার (১৯ অক্টোবর) সকাল থেকে ক্ষতস্থান দিয়ে রক্ত পড়া শুরু করে। পরিস্থিতির অবনতি হলে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ ও ডা. হামিদুর রোগীকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেন। এ সময় স্বজনরা রোগীকে রংপুরে নিয়ে যাওয়ার আগেই তার মৃত্যু হয়।

রোগীর স্বামী আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, ডা. হামিদুর রহমানকে রোগীর সব সমস্যার কথা বলার পরও দ্রুত অস্ত্রপচার করেন। পরে রক্তক্ষরণ বন্ধ না হলে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ ডাক্তারকে জানান। এ সময় চিকিৎসক রোগীকে রংপুর নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। এর কিছুক্ষণ পরই আমার স্ত্রী মৃত্যু হয়।

ডা. হামিদুর রহমান বলেন, ‘রোগীর রক্তক্ষরণ বেশি হওয়ায় রংপুর নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেই। এছাড়া ক্লিনিকে আইসিইউি না থাকায় তাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। বিষয়টি স্বজনদের সঙ্গে মীমাংসা করে মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।’

মাম হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিক বাবলু জানান, এ ঘটনায় ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের কোনো অবহেলা ছিল না। ডাক্তারের অসাবধানতায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও জেলা সিভিল সার্জন ডা. আবু মো. খায়রুল কবির জানান, বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিকের নামে নানা ধরনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব বিষয়ে তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত কয়েক মাসে ঠাকুরগাঁওয়ে বিভিন্ন বেসরকারি ক্লিনিকে ডাক্তারের অবহেলায় চারজন প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। তবে জেলার মাসিক স্বাস্থ্য সভায় সিভিল সার্জনের কাছে একাধিক অভিযোগ করলেও কোনো কার্যকর ভূমিকা পালন করতে দেখা যায়নি।

রবিউল এহসান রিপন/এমএমজেড/এএইচ

আপনার মতামত লিখুন :