বিএনপি করায় ৪ নেতার দোকানে তালা দিল যুবলীগ নেতা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৮:১৭ পিএম, ১৯ নভেম্বর ২০১৮

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার নলচিড়া ইউনিয়নের পিংলাকাঠি বাজারে ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতিসহ ৪ নেতার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তালাবদ্ধ করে রাখার অভিযোগ উঠেছে যুবলীগ নেতা মো. মুকুল হাওলাদারের বিরুদ্ধে।

বন্ধ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর তালা খুলতে গিয়ে সোমবার বিকেলেও বাধার মুখে পড়তে হয়েছে বলে জানান ভুক্তোভোগীরা।

গৌরনদী উপজেলা যুবলীগের সদস্য ও পিংলাকাঠি বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো. মুকুল হাওলাদার আওয়ামী লীগ ও যুবলীগ নেতকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে দোকান খুলতে বাধা দিয়ে আসছেন বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতিসহ ৪ নেতা।

ভুক্তোভোগী উপজেলার নলচিড়া ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও মেসার্স শিকদার এন্টারপ্রাইজের মালিক মো. হারুন শিকদার অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমি পিংলাকাঠি বাজারে রড ও সিমিন্টের ব্যবসা পরিচালনা করে আসছি। অনেকদিন ধরে বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ও উপজেলা যুবলীগের সদস্য মো. মুকুল হাওলাদার আমাকে বিএনপি না করার জন্য নির্দেশ দেন। যুবলীগ নেতা মুকুলের কথামতো কাজ না করায় শুক্রবার সকালে মুকুল হাওলাদারের নেতৃত্বে যুব ও ছাত্রলীগের ১০/১৫ নেতাকর্মী আমার দোকান বন্ধ করে দেন।

বাজারের মেসার্স হাওলাদার পোল্ট্রি ও ফিস ফিডের মালিক ও ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি মো. জহিরুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, আমি ৫ বছর ধরে এ বাজারে ব্যবসা করে আসছি। গত শুক্রবার বিকেলে মুকুল হাওলাদারের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের ১০ থেকে ১৫ নেতাকর্মী আমার দোকানে গিয়ে আমাকে খোঁজাখুঁজি করেন। না পেয়ে দোকানের কর্মচারী মো. তুহিনকে দোকান থেকে বের করে দিয়ে দোকান বন্ধ করে দিয়েছে।

একইভাবে যুবদল নেতা সোহেল মোল্লার মেকানিক্যাল দোকান বন্ধ করে দেয় তারা।

নলচিড়া ইউনিয়নের বিএনপি কর্মী বাহার হাওলাদার অভিযোগ করেন, তার ছোট ভাই কবির হাওলাদার নলচিড়া ইউনিয়নের বোরাদী গরঙ্গল (কয়ারিয়া) বাজারের চাল ও এলপি গ্যাসের ব্যবসা করেন। গত শনিবার সকালে যুবলীগ নেতা মুকুল হাওলাদার দলবল নিয়ে দোকান গিয়ে ভাইকে জানান, বিএনপির কোনো নেতার স্বজন এ বাজারে ব্যবসা করতে পারবে না। পরে ভাইকে দোকান থেকে বের করে দিয়ে দোকান বন্ধ করে দিয়েছে।

যুবলীগ নেতা মুকুল হাওলাদার বলেন, বিএনপির দলীয় অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে যদি দোকান বন্ধ রাখে, তার দায়-দায়িত্ব কি বাজার কমিটির সভাপতি নেবে। তাদের দোকান খুলতে কেউ বাঁধা দিচ্ছে না।

নলচিড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শাহজাহান কবীর বলেন, বাজারের ব্যবসায়ী বিএনপির ৪ নেতাকর্মী দোকান বন্ধ করে ঢাকায় গিয়ে মনোনয়ন প্রত্যাশীর পক্ষে কাজ করছে।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম হাফিজ মৃধা বলেন, এ ব্যাপারে আমার কাছে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। খোঁজ নিয়ে সত্যতা পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গৌরনদী মডেল থানা পুলিশের ওসি মো. গোলাম সরোয়ার বলেন, দোকান বন্ধ সম্পর্কে কোনো ব্যবসায়ী থানায় অভিযোগ করেনি। লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাইফ আমীন/এমএএস/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :