পরীক্ষার্থী চারজন, দায়িত্বে ৪২ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক রংপুর
প্রকাশিত: ০৬:৪৪ পিএম, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

রংপুরের কাউনিয়ায় হারাগাছ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়, দরদী দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় ও কাউনিয়া মোফাজ্জল হোসেন মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে সোমবার অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষায় পরীক্ষার্থী ছিল মাত্র চারজন। আর এই তিন কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করেছেন ৪২ জন। আজ শারীরিক শিক্ষা, স্বাস্থ্য বিজ্ঞান ও খেলাধুলা বিষয়ের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

ওই চার পরীক্ষার্থী হচ্ছে- দরদী দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শ্যামলী আকতার, হারাগাছ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী উম্মে কুলছুম, কুর্শা উচ্চ বিদ্যালয়ের আতিকুর রহমান এবং কাউনিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সুমনা আক্তার।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জাকির হোসেন জানান, ওই তিন পরীক্ষা কেন্দ্রে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা চারজন হলেও দায়িত্বে ছিলেন উপজেলা নির্বাহীর প্রতিনিধি তিনজন, কেন্দ্র সচিব তিনজন, সহকারী কেন্দ্র সচিব তিনজন, হল সুপার তিনজন, ছয়জন কক্ষ পর্যবেক্ষক (পরিদর্শক), তিনজন চিকিৎসক, তিনজন অফিস সহকারী, ছয়জন যাচাই-বাছাইকারী, তিনজন খাতা বান্ডিলকারী এবং পোস্ট অফিসের তিনজন প্রতিনিধি ও পুলিশের ছয় সদস্য। পরীক্ষা চলাকালে তিন কেন্দ্রের আশপাশে ১৪৪ ধারা জারি ছিল।

পরীক্ষা কেন্দ্রের সচিব ও হারাগাছ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোকছুদার রহমান জানান, তার কেন্দ্রে পরীক্ষার্থী একজন হলেও আয়োজন ছিল পুরোপুরি। সবাই দায়িত্ব পালন করেছেন।

একই কথা জানিয়েছেন দরদী দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়, কাউনিয়া মোফাজ্জল হোসেন মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব।

পরীক্ষা কেন্দ্রে দায়িত্বপ্রাপ্তরা জানান, এবারে এসএসসিতে নিয়মিত পরীক্ষার্থীদের শারীরিক শিক্ষা, স্বাস্থ্য বিজ্ঞান ও খেলাধুলা বিষয়ে লিখিত পরীক্ষা নেই। শুধু অনিয়মিত পরীক্ষার্থীরা ওই বিষয়গুলোতে পরীক্ষা দিচ্ছে।

হারাগাছ বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের হল সুপার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, এসএসসি পরীক্ষার্থী শ্যামলী আকতার ২০১৭ সালে পরীক্ষায় অংশ নেয়নি। অনিয়মিত এই পরীক্ষার্থীর জন্য ৪ ফেব্রুয়ারি শারীরিক শিক্ষা, স্বাস্থ্য বিজ্ঞান ও খেলাধুলা বিষয় এবং আগামী ১৩ ফেব্রুয়ারি ক্যারিয়ার শিক্ষাপত্রের পরীক্ষা চলার সময়ও ১৪ জন দায়িত্ব পালন করবেন।

জিতু কবীর/আরএআর/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :