প্রধানমন্ত্রীর কাছে মহেশখালীবাসীর দাবি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ০৮:২৮ পিএম, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

কক্সবাজারের মহেশখালীতে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পসহ চলমান অন্যান্য মেগা প্রকল্পে অধিগ্রহণকৃত ভূমি এলাকায় ব্যাপক অনিয়ম-দুর্নীতি বন্ধ এবং জমির উপযুক্ত মূল্য ও যথাযথ ক্ষতিপূরণ প্রদানসহ আট দফা দাবিতে মানববন্ধন করেছে মহেশখালীর সর্বস্তরের মানুষ।

'আগে পুনর্বাসন, পরে অধিগ্রহণ' এ স্লোগানে 'মহেশখালীর জাগ্রত ছাত্রসমাজ'র ব্যানারে বুধবার কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে মহেশখালীর সর্বস্তরের পেশাজীবি, রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক, ছাত্রনেতা, সচেতন শিক্ষিত যুবা ও ভুক্তভোগী নারী-পুরুষ অংশ নেন।

দাবি আদায়ে ২০ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছে আয়োজকরা। এর মধ্যে দাবি বাস্তবায়ন না হলে আরো বৃহৎ আন্দোলনের ডাক দেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেয়া হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধিন সরকার ভিশন-২০৪১ এর অংশ হিসেবে বাংলাদেশকে একটি উন্নত দেশে পরিণত করতে বিভিন্ন মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছে। তারই ধারাবাহিকতায় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পসহ বিভিন্ন মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নাধিন রয়েছে মহেশখালীতে। এতে একাধিক মেগা প্রকল্পের কিছু জমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে আর কিছুতে এখনও রয়েছে চলমান। মহেশখালীর সাধারণ মানুষ কখনও সরকারি এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেনি। কিন্তু দুর্ভাগ্য হলেও সত্য যে, ইতিপূর্বে অধিগ্রহণকৃত জমির মালিকগণ তাদের জমির কাঙ্ক্ষিত ন্যায্য মূল্য পায়নি বরং অনেক ক্ষেত্রেই জমির মূল্যের মোটা অংক সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কিছু দুর্নীতিগ্রস্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যোগসাজসে দালাল চক্র লুটে নিচ্ছে। দালাল না ধরলে ভূমি অধিগ্রহণ শাখা ক্ষতিপূরণ পেতে নানা প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে। জ্ঞানহীন হতদরিদ্র জমির মালিকরা এতে ভোগান্তিতে পড়ে পথে পথে ঘুরছেন। আর দালাল ধরলে অফিস ম্যানেজসহ ১৫ থেকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত টাকা নিয়ে নিচ্ছে তারা। এতে চিরতরে জমি হারানো মানুষগুলো চরম ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

মহেশখালীর জাগ্রত ছাত্রসমাজের আহ্বায়ক ছাত্রনেতা ফজলে আজিম মো. ছিবগতুল্লাহর সভাপতিত্বে ও 'আমরা মাতারবাড়ির সন্তান' সংগঠনের প্রধান সমন্বয়ক এনামুল হক সাগরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মহেশখালী উপজেলাপরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ, মহেশখালী উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হালিমুর রশিদ, মহেশখালী উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য হাসান বশির, জেলা শ্রমিকলীগের কার্যকরী সদস্য ফরিদুল আলম প্রমুখ।

মানববন্ধন শেষে সংগঠনের নেতৃবৃন্দ কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কাছে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন।

সায়ীদ আলমগীর/এমএএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :