আজও ৭ ছাত্রী অজ্ঞান, স্কুল বন্ধ ঘোষণা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফেনী
প্রকাশিত: ০৩:০৫ পিএম, ১৯ মার্চ ২০১৯

ফেনীর ফুলগাজী উপজেলার বন্দুয়া দৌলতপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের আরও সাত ছাত্রী অজ্ঞান হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে জাতীয় সংগীত পাঠ শেষে শ্রেণি কক্ষে প্রবেশ করেই একে একে ওই সাত ছাত্রী অজ্ঞান হয়ে পড়ে। এ ঘটনায় দুই দিন স্কুল বন্ধ ঘোষণা করেছে কৃর্তৃপক্ষ। এ ঘটনায় চরম আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন অভিভাবকরা।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. রবিউল হক মজুমদার জানান, মঙ্গলবার সকালে জাতীয় সংগীত পাঠ শেষে শ্রেণি কক্ষে প্রবেশ করেই একে একে নবম শ্রেণির হনুফা আক্তার ও সৃষ্টি আক্তার, অষ্টম শ্রেনির নুসরাত ইয়াসমিন, সাজেদা আক্তার, সুলতানা আফরা, বিবি কুলসুম, ফারহানা আক্তার অজ্ঞান হয়ে মেঝেতে লুটিয়ে পড়ে। পরে শিক্ষক ও সহপাঠীরা তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার ও বুধবার স্কুল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে তিনি জানান।

নাছিমা আক্তার নামে এক অভিভাবক জানান, তার মেয়ে নারগিস সুলতানা ওই স্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। সোমবার স্কুলে একটু মাথা ঘুরালেও বিকেলে বাড়িতে এসে অজ্ঞান হয়ে যায়। পরে তিনি হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দিচ্ছেন। এখন তিনি মেয়ের পড়াশোনা নিয়ে শঙ্কিত।

ফুলগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. শরফুদ্দিন মাহমুদ জানান, ‘মাস হিস্টিরিয়া’ নামে একটি রোগ রয়েছে। মানসিক ও আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে এ ধরনের রোগ হতে পারে। এ ধরনের রোগ হলে বিশেষ করে ছাত্রীরা হঠাৎ করে মাথা ঘুরে অজ্ঞান হয়ে পড়ে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে শিক্ষার্থীদের অবস্থার উন্নতি হয়েছে। তাদের সার্বক্ষণিক খোঁজ রাখা হচ্ছে।

এর আগে সোমবার সকালে ওই স্কুলের শিক্ষার্থীরা জাতীয় সংগীত পাঠ শেষে শ্রেণি কক্ষে প্রবেশ করে। এরপর একে একে ৮ ছাত্রী অজ্ঞান হয়ে মেঝেতে লুটিয়ে পড়ে। খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে ছুটে যান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. এনামুল হক।

রাশেদুল হাসান/আরএআর/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :