মডেলিং করে চুল-দাড়ি কাটালে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি টাঙ্গাইল
প্রকাশিত: ০৪:২০ পিএম, ২১ মার্চ ২০১৯

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে মডেলিং করে চুল, দাড়ি ও গোঁফ কাটার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে উপজেলা শীল সমিতি। সম্প্রতি ভূঞাপুর উপজেলা শীল সমিতির সভাপতি শেখর চন্দ্র শীল এবং সাধারণ সম্পাদক অরুন চন্দ্র শীল স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, হেয়ার স্টাইল, দাড়ি ও গোঁফ মডেলিংয়ের ওপর সরকারিভাবে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এই আদেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ৪০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডসহ আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। হেয়ার স্টাইলের কোনো ক্যাটালগ দোকানে প্রদর্শনও করা যাবে না। এই আদেশ অমান্য করলে ভূঞাপুর উপজেলা শীল সমিতি কোনো দায়ভার গ্রহণ করবে না বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এদিকে বিজ্ঞপ্তিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। এ আদেশ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি উঠতি বয়সের ছাত্র ও যুবকসহ সকলের হেয়ার স্টাইলসহ দাড়ি ও গোঁফ মডেলিং ও রঙ না করার বিষয়ে পরিচালিত সেলুন ব্যবসায়ী শীল সদস্যদের ডেকে সতর্ক করে দেন ভূঞাপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাশিদুল ইসলাম। এরপরই ওই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে শীল সমিতির সভাপতি ও সম্পাদক স্বাক্ষর গ্রহণ করেন তিনি। পরে সেই নোটিশ উপজেলার সকল সেলুনে ঝুলিয়ে দেয়া হয়।

ভূঞাপুর উপজেলা শীল সমিতির উপদেষ্টা অখিল চন্দ্র শীল বলেন, থানার ওসির নির্দেশনায় সেলুনে মডেলিং করে চুল, দাড়ি ও গোঁফ কাটা বন্ধ করা হয়েছে। এ কারণে ছাত্র ও যুবকরা বর্তমানে মডেলিং করে চুল কাটার পরিবর্তে স্বাভাবিকভাবে চুল কাটাচ্ছে।

tangail

উপজেলা শীল সমিতির সভাপতি শেখর চন্দ্র শীল বলেন, মডেলিং করে চুল, দাড়ি ও গোঁফ কাটতে আমাদের সতর্ক করে দিয়েছেন থানার ওসি। এছাড়াও পরিচালিত সেলুনে হেয়ার স্টাইলের কোনো ক্যাটালগ না টাঙানোর নির্দেশও দিয়েছেন তিনি। পরে ওসির নির্দেশনায় ও স্বাক্ষরসহ শীল সমিতির সভাপতি ও সম্পাদকের স্বাক্ষর সম্বলিত এ আইনের নোটিশ উপজেলার প্রত্যেকটি সেলুনে টাঙিয়ে দেয়া হয়। এরপরও কেউ যদি এ নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে তবে তাকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করাসহ ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার আদেশও দেয়া হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ভূঞাপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাশিদুল ইসলাম বলেন, এই মডেলিং চুল, দাড়ি ও গোঁফ কাটা নিয়ে মৌখিক অভিযোগ করেছেন অভিভাবকরা। হেয়ার স্টাইলের নামে কুরুচিপূর্ণ চুল কেটে বখাটেদের মত ঘুরে বেড়াচ্ছে স্কুল আর কলেজের ছাত্র ও যুবকরা। এছাড়াও ওই বখাটেরা সমাজের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। পরে অভিভাবক, শিক্ষক ও উপজেলা শীল সমিতির সভাপতিসহ সমিতির সদস্যদের নিয়ে এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। এছাড়াও এ হেয়ার স্টাইলে যদি কেউ চুল কাটাসহ দাড়ি ও গোঁফ মডেলিং এবং রঙ করে তাহলে তার বিরুদ্ধে জরিমানাসহ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ারও বিধান রাখা হয়েছে।

এদিকে ভূঞাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ঝোটন চন্দ জানান, এ বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না, তিনি ওসির সঙ্গে কথা বলবেন।

আরিফ উর রহমান টগর/আরএআর/জেআইএম