রাস্তায় টিনের বেড়া, ১৫ দিন ধরে অবরুদ্ধ ব্যবসায়ীর পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ১২:৩৪ এএম, ২৩ মে ২০১৯

বরিশালের মুলাদী উপজেলায় দাবি করা সাত লাখ টাকা চাঁদা না পেয়ে হালিম আকন নামের এক ব্যবসায়ী ও তার পরিবারকে ১৫ দিন ধরে অবরুদ্ধ করে রাখার অভিযোগ উঠেছে।

ওই বাড়িতে যাতায়াতের রাস্তা টিনের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ফলে কেউ বাড়ি থেকে বের হতে পারছেন না এবং তাদের স্বজনরা কেউ বাড়িতে প্রবেশ করতেও পারছেন না।

অভিযুক্তরা হলেন- ঘোষেরচর গ্রামের হামেদ চৌকিদারের ছেলে মকবুল চৌকিদার, ওয়াজেদ চৌকিদারের ছেলে মোস্তফা চৌকিদার এবং তাদের কয়েকজন সহযোগী। স্থানীয়ভাবে কোনো পদ-পদবি না থাকলেও তারা নিজেদের আওয়ামী লীগ নেতা বলে পরিচয় দিয়ে এলাকায় প্রভাব বিস্তার করেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

ভুক্তভোগী হালিম আকন উপজেলার নাজিরপুর ইউনিয়নের ঘোষেরচর গ্রামের আবু তাহের আকনের ছেলে। তিনি জানান, প্রায় তিন বছর আগে নাজিরপুর ইউনিয়নের ঘোষেরচর মৌজায় ১২ শতাংশ জমি ক্রয় করে তিনি বাড়ি নির্মাণ করে বসবাস করে আসছেন। কিছুদিন আগে ঘোষেরচর গ্রামের হামেদ চৌকিদারের ছেলে মকবুল চৌকিদার, ওয়াজেদ চৌকিদারের ছেলে মোস্তফা চৌকিদারসহ স্থানীয় একটি চাঁদাবাজ চক্র তার কাছে সাত লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন।

হালিম আকন চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে চক্রটি তার (হালিম আকন) বাড়ির সামনের ১০০ বর্গফুট জমি নিজের দাবি করেন এবং ওই জমি আট লাখ টাকায় বিক্রির জন্য প্রস্তাব দেন।

ব্যবসায়ী হালিম আকন আরও জানান, তারা যে জমি বিক্রির কথা বলছেন, সে জমি ক্রয়সূত্রে তিনিই মালিক। গায়ের জোরে তারা দখল করে রেখেছেন। জমি কিনতে অপারগতা প্রকাশ করলে চাঁদাবাজরা গত ৮ মে সকালে বাড়ির প্রবেশের রাস্তা টিনের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দেয়। ঘটনার পর থেকে হালিম আকন ও তার পরিবার প্রায় ১৫ দিন ধরে অবরুদ্ধ অবস্থায় রয়েছেন। ছেলে-মেয়েদের স্কুলে যাওয়া-আসা বন্ধ হয়ে গেছে। বাড়ির পেছনের বাগন, জঙ্গল পেরিয়ে প্রায় দুই থেকে তিন কিলোমিটার ঘুরে বাজারঘাট করতে হচ্ছে।

বিষয়টি নিয়ে এলাকায় কয়েক দফা সালিশ বৈঠক হলেও মকবুল চৌকিদার তার অবস্থানে অনঢ় থাকায় কোনো সমাধানে আসা সম্ভব হয়নি। বুধবার রাত পর্যন্ত তার বাড়ির সামনের বন্ধ রাস্তা খুলে দেয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেন হালিম আকন।

স্থানীয়রা জানান, আওয়ামী লীগের মিছিল-মিটিংয়ে মকবুল চৌকিদার ও মোস্তফা চৌকিদারকে দেখা যায়। তারা নিজেদের আওয়ামী লীগ নেতা বলে পরিচয় দেন। এ কারণে তাদের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস পান না।

নাজিরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যাপক বদিউল আলম মুকুল তালুকদার এ প্রসঙ্গে জানান, মকবুল চৌকিদার ও তার লোকজন অযৌক্তিক টাকা চেয়ে ব্যবসায়ী হালিম আকনের সঙ্গে অনৈতিক কাজ করছেন। বিষয়টি নিয়ে থানা পুলিশের মধ্যস্থতায় সমন্বয়ের চেষ্টা চালিয়েও ব্যর্থ হয়েছেন।

মুলাদী থানার ওসি জিয়াউল আহসান জানান, ঘোষেরচর গ্রামে দুই পরিবারের মধ্যে জমি নিয়ে বিরোধের কথা শুনেছি। তবে এ বিষয়ে কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সাইফ আমীন/এমএআর/বিএ

আপনার মতামত লিখুন :