ভাইয়ের লাথিতে গর্ভবতী বোনের মৃত সন্তান প্রসব

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি ভৈরব (কিশোরগঞ্জ)
প্রকাশিত: ০৭:২৮ পিএম, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
গৃহবধূ রুপালী বেগম ও স্বামী নুরে আলম

ভৈরবে চাচাতো ভাইয়ের লাথিতে গর্ভবতী বোনের গর্ভপাতে মৃত সন্তান প্রসবের ঘটনায় ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে গৃহবধূ রুপালী বেগমের ভাই বাদী হয়ে ভৈরব থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন, কাউসার (২৪), জসীম মিয়া (৪৫), সারোয়ার (১৮), শাকিব (২১) ও রাকিব মিয়া (১৯)।

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ভৈরবের চাঁনপুর গ্রামের নূরে আলমের স্ত্রী রুপালী বেগম সাত মাসের গর্ভবতী ছিলেন। গত রোববার সকালে রুপালী বেগমের চাচাতো ভাই কাউছারসহ প্রতিবেশী কয়েকজনের তার স্বামীর নুরে আলমের সঙ্গে ঝগড়া বাঁধে। ঝগড়া থামাতে গর্ভবতী রুপালী বেগম এগিয়ে এলে এক পর্যায়ে তার চাচাতো ভাই কাউছার পেটে লাথি মারলে তিনি মাটিতে পড়ে যান। এতে তার (রুপালীর) রক্তক্ষরণ শুরু হলে তাকে দ্রুত ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন সোমবার রাতে গৃহবধূ রুপালী বেগম মৃত শিশু সন্তান প্রসব করেন।

রুপালীর স্বামী নুরে আলম জানান, আমি এলাকায় রাজমিস্ত্রীর কাজ করি। ছয় বছর আগে আমাদের বিয়ে হয়। ঘটনার দিন একটি তুচ্ছ ঘটনায় আমার স্ত্রীর চাচাতো ভাই কাউছার দলবল নিয়ে ঝগড়া শুরু করে। এসময় আমার স্ত্রী ঝগড়া থামাতে এলে তার পেটে লাথি মারে। এতে তার গর্ভপাত ঘটে। আমি ঘটনার বিচার চাই।

হাসাপাতালের গাইনি বিভাগের ডাক্তার হরিপদ সাহা জানান, গৃহবধূর পেটে আঘাতের কারণেই এ গর্ভপাতের ঘটনা ঘটে। বর্তমানে গৃহবধূ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকলেও তার রক্তক্ষরণ এখনও হচ্ছে বলে জানান তিনি।

ভৈরব থানা পুলিশের অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মোখলেছুর রহমান জানান, এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। ডাক্তারি সার্টিফিকেট পাওয়ার পর ঘটনা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

আসাদুজ্জামান ফারুক/এমএএস/পিআর