গ্রাহকের ৬ লাখ টাকা তুলে নিয়েছেন অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী
প্রকাশিত: ০৮:৫৮ পিএম, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯
ছবি: সংগৃহীত

গ্রাহক জানেন না অথচ তার ব্যাংক হিসাব থেকে ৬ লাখ টাকা তুলে নিয়েছেন ব্যবস্থাপক। চলতি বছরের ১৬ জুন এ ঘটনা ঘটে অগ্রণী ব্যাংকের রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা শাখায়।

তবে গ্রাহক ঘটনা টের পেয়েছেন গত ২৪ সেপ্টেম্বর। ওই দিনই বিষয়টি তিনি বর্তমান ব্যবস্থাপক শিব শঙ্করকে জানান। তৎকালীন ওই শাখা ব্যবস্থাপক আহসান হাবিব নয়ন এ কাণ্ড ঘটিয়েছেন বলে অভিযোগ এনেছেন গ্রাহক সাবের আলী।

ভুক্তভোগী সাবের আলী উপজেলার দাড়িয়াপুর হাতাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। এ নিয়ে ব্যাংকটির সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন তিনি।

সাবের আলীর ছেলে মনিরুল ইসলাম জানান, ব্যবস্থাপক শিব শঙ্কর ক্যাশ শাখায় গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, গ্রাহক সাবের আলীর হিসাব নম্বর (০২০০০০৯৫৭৭৫৯৪)। তিনি ১৯৮৯ সাল থেকে অগ্রণী ব্যাংকে লেনদেন করেন। তার একটি ঋণও আছে। সেই ঋণ সমন্বয় করার কথা বলে ওই সময় ব্যবস্থাপকের দায়িত্বে থাকা আহসান হাবিব নয়ন ব্যাংকের পিয়ন আফজালের মাধ্যমে ৪৩০৮১৭২ নম্বরের একটি চেক বইয়ের ফাঁকা পাতা নেন। সেটি এ বছরের ১৬ জুন ব্যবহার করেই ওই হিসাব নম্বর থেকে ৬ লাখ টাকা তুলে নেয়া হয়েছে। চেকের পাতাটিতে সে সময়ের ব্যবস্থাপক আহসান হাবিব নয়ন নিজেই টাকার পরিমাণ লিখেছেন।

ব্যাংকের বর্তমান ব্যবস্থাপক শিব শঙ্কর জানান, গ্রাহকের লিখিত অভিযোগ পাওয়ার পর তিনি বিষয়টির অনুসন্ধান শুরু করেছেন। এরপর জানতে পারেন, পিয়ন আফজাল চেকের পাতাটি নিয়ে এসে আহসান হাবিব নয়নকে দেন। এরপর গ্রাহকের অভিযোগ ও তার অনুসন্ধান লিপিবব্ধ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন।

শাখা ব্যবস্থাপক আহসান হাবিব নয়ন বর্তমানে ব্যাংকের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখায় প্রিন্সিপাল অফিসার হিসেবে কর্মরত।

তিনি দাবি করেন, এ ঘটনার সঙ্গে তিনি জড়িত নন। চার মাস পরে এমন অভিযোগের পেছনে অন্য কোনো কারণ আছে বলেও দাবি করেন আহসান হাবিব নয়ন।

ফেরদৌস/এমএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]