রাস্তার পাশে নবজাতক ঘিরে খেলছিল কুকুর

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ময়মনসিংহ
প্রকাশিত: ১২:৪৮ এএম, ০৫ অক্টোবর ২০১৯

ময়মনসিংহের ফুলপুর উপজেলার মোকামিয়া দক্ষিণপাড়া গ্রামে রাস্তার পাশ থেকে জীবিত এক নবজাতককে উদ্ধার করা হয়েছে। ওই গ্রামের হাশিম উদ্দিন ও তার স্ত্রী হোসনা বেগম শুক্রবার নবজাতককে উদ্ধার করেন। বর্তমানে নবজাতকটি ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি থাকলেও সে সুস্থ রয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক। তবে নবজাতকটিকে কে বা কারা ফেলে গেছে তার খোঁজ জানাতে পারেনি পুলিশ।

স্থানীয়দের ধারণা শুক্রবার ভোররাতের কেউ শিশুটিকে রাস্তার পাশে ফেলে রাখে। এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মোকামিয়া দক্ষিণপাড়া গ্রামে ব্যবসায়ী হাশিম উদ্দিন ও তার স্ত্রী হোসনা বেগম সকালে হাঁটতে বের হন। তখন দেখেন রাস্তার পাশে কয়েকটি কুকুর ঘেউ ঘেউ করছে। পরে তারা রাস্তার পাশে কাপড়ে প্যাঁচানো এক জীবিত নবজাতককে দেখতে পান। শিশুটিকে ৫-৬টি কুকুর ঘিরে খেলা করছিল।

হোসনা বেগম নবজাতককে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যান। তিনি শিশুটিকে পরিষ্কার করে নিজের বুকের দুধ পান করান। হোসনা বেগমের দেড় বছরের এক শিশু রয়েছে।

নবজাতক উদ্ধারের এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় অনেক মানুষ শিশুটিকে দেখার জন্য হাশিম উদ্দিনের বাড়িতে ভিড় জমান।

নবজাতক উদ্ধারকারী হোসনা বেগম জানান, ভোরবেলা, অনেক মানুষ তখনও ঘুম থেকে উঠেনি। আমি হাঁটতে বের হয়ে শিশুটিকে পাই। দেখলাম শিশুটিকে ঘিরে কুকুরগুলো খেলা করছে। আমি ও আমার স্বামী ওই মুহূর্তে ওখানে না গেলে শেয়াল-কুকুরে শিশুটিকে খেয়ে ফেলত।

খবর পেয়ে ফুলপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম, ওসি ইমারত হোসেন গাজী, উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা শিহাব উদ্দিন খান, ফুলপুর শিশু সুরক্ষার দায়িত্বপ্রাপ্ত এসআই মেহেদি হাসান সুমন শুক্রবার দুপুরে ঘটনাস্থলে গিয়ে নবজাতককে নিজেদের হেফাজতে নেন। পরে চিকিৎসার জন্য ফুলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সেইসঙ্গে নবজাতক উদ্ধারকারী হোসনা বেগমকে শিশুটিকে দেখাশোনার জন্য হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাইফুল ইসলাম চিকিৎসকের বরাত দিয়ে জানান, শিশুটি বর্তমানে সুস্থ আছে। শিশুটিকে দত্তক নেয়ার জন্য আগ্রহী অনেকেই আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। শিশুটিকে কেউ দত্তক নিতে চাইলে তা আইনি প্রক্রিয়ায় নিতে হবে।

রকিবুল হাসান রুবেল/জেডএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]