স্বামীর বাড়িতে ফেরার পরদিনই লাশ হলেন অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কিশোরগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৬:৪১ পিএম, ১৬ অক্টোবর ২০১৯

কিশোরগঞ্জে মোছা. জুয়েনা আক্তার নামের চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা এক নারীকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামী সুমন মিয়ার বিরুদ্ধে। বুধবার ভোরে সদর উপজেলার মহিনন্দ ইউনিয়নের চংশোলাকিয়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত সুমন মিয়া পলাতক।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মাত্র ছয় মাস আগে উপজেলার মহিনন্দ ইউনিয়নের কাসুরারচর গ্রামের ওয়ালি নেওয়াজের মেয়ে জুয়েনার বিয়ে হয় পার্শ্ববর্তী চংশোলাকিয়া গ্রামের আ. রহিমের ছেলে অটোরিকশা চালক সুমন মিয়ার সঙ্গে। বিয়ের পর থেকেই স্ত্রীকে মারধর করতো মাদকাসক্ত সুমন। মঙ্গলবার রাতে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। পরে দুজনই রাতের খাবারের পর ঘুমিয়ে পড়ে। ভোরে পরিবারের লোকজন ঘরের দরজা বাইরে থেকে দড়ি দিয়ে বাঁধা দেখতে পায়। পরে ভেতরে ঢুকে বিছানার ওপর জুয়েনার মদেহ পড়ে থাকতে দেখে।

জুয়েনার বাবা ওয়ালী নেওয়াজ বলেন, ‘আমার মেয়ের বিয়ে হয়েছে মাত্র ছয় মাস আগে। বিয়ের পর জানতে পারি ছেলেটি নেশা করে। প্রায়ই গভীর রাতে বড়ি ফিরে সে আমার মেয়েকে মারধর করতো। অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে কিছু দিন আগে জুয়েনা আমার বাড়ি চলে আসে। গত পরশু সুমনের বাবা আমাদের বাড়ি থেকে জুয়েনাকে নিয়ে যায়। এর একদিন পরই আমার মেয়েটাকে হত্যা করা হলো। আমি এর বিচার চাই।’

কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবুবকর সিদ্দিক জানান, পারিবারিক বিরোধের জেরে জুয়েনাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ব্যাপারে নিহতের বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

নূর মোহাম্মদ/এমবিআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]