সাভার ও ধামরাইরে ১৫ ব্যবসায়ীকে জরিমানা

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি সাভার
প্রকাশিত: ০৫:১৯ এএম, ২০ নভেম্বর ২০১৯

লবণের কেজি দুই’শ টাকা হবে এমন গুজবে সাভার ও ধামরাইরে বিভিন্ন এলাকায় লবণ কেনার হিড়িক পড়েছে। এ সময় বিভিন্ন পাইকারি ও খুচরা দোকানে ক্রেতাদেরকে লাইন দিয়ে ৫-১০ কেজি পর্যন্ত লবণ কিনতে দেখা গেছে। এই সুযোগে অসাধু ব্যবসায়ীরাও ক্রেতাদের কাছে চড়া দামে লবণ বিক্রি শুরু করেছে।

দাম বৃদ্ধির ঘটনায় কিছু কিছু এলাকায় ব্যবসায়ীদের সাথে সাধারণ ক্রেতাদের হাতাহাতির ঘটনাও ঘটেছে। এদিকে দাম নিয়ন্ত্রেণে রাখার জন্য ঢাকার ধামরাইয়ে মসজিদে মসজিদে মাইকিং করে সকলকে সচেতন থাকার পরামর্শ দিয়েছেন পৌর মেয়র আলহাজ গোলাম কবির মোল্লা।

মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার বড় মসজিদের মাইকে জরুরি ঘোষণায় গোলাম কবীর মোল্লা বলেন, আমি মেয়র হিসেবে সবাইকে আহ্বান জানাচ্ছি লবণের দাম বৃদ্ধির গুজবে কান দেবেন না। দেশে পর্যাপ্ত পরিমাণ লবণ উৎপাদন ও মজুত রয়েছে। বিদেশ থেকে কোনো লবণ আনার প্রয়োজন নেই। গুজব ছড়িয়ে পড়ার কারণে অনেকে দাম বাড়িয়ে নিচ্ছেন, এই গুজবে কেউ কান দেবেন না।

ধামরাই থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফরহাদ হোসেন ছোটন বলেন, ধামরাই কালামপুর থেকে ৭ ও কাওলীপাড়া থেকে ৩ জনকে আটক করে, তাদের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়।

অন্যদিকে সাভারে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাজার মনিটরিংয়ের জন্য পৃথক চারটি টিম কাজ শুরু করেছে। মঙ্গলবার বিকেলে সহকারী কমিশনার ভূমি (আশুলিয়া রাজস্ব সার্কেল) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাজওয়ার আকরাম সাকাপি ইবনে সাজ্জাদের নেতৃত্বে আশুলিয়ার বাইপাইলে অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এ সময় শরিফ স্টোর, সবুজ বাণিজ্যালয় ও ভাই ভাই স্টোর নামে তিনটি দোকানকে মোট ৯০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পাশাপাশি বেশি দামে কেউ লবণ বিক্রি করলে বা দাম চাইলে ক্রেতাদেরকে সংশ্লিষ্ট থানা ও হট লাইন নম্বরে জানানোর পরামর্শ দেন তিনি।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আব্দুস সালাম বলেন, ৫ জনকে আটক করে তাদের জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

সাভার উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) পারভেজুর রহমান ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মাহফুজ আহম্মেদও দাম নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য মাঠে নামেন। এ সময় সাভারের নামা বাজার, উলাইল, হেমায়েতপুর ও আমিনবাজার এলাকায় বাড়তি দামে লবণ বিক্রির দায়ে ১০ জনকে আটক করা হয়। পরে তাদেরকে বিভিন্ন মেয়াদে কাড়াদণ্ড ও আর্থিক জরিমানা করা হয়।

এ ছাড়া সাভার নামাবাজার এলাকায় অতিরিক্ত মূল্যে লবণ বিক্রি না করতে ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে মাইকিং করেন সাভার মডেল থানা পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন) জাকারিয়া হোসেন।

আল-মামুন /সাভার/এমআরএম