আমরা মাদক খেতে দেব না : খাদ্যমন্ত্রী

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নওগাঁ
প্রকাশিত: ০৩:২৩ পিএম, ২১ নভেম্বর ২০১৯

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেছেন, যারা মাদক গ্রহণ করে তারা আমাদের শত্রু। মাদক শুধু সমাজ নয়, দেশকেও ধ্বংস করে। মাদকের বিরুদ্ধে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতি রয়েছে। আমরা মাদক খাব না বা খেতে দেব না।

বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টায় বিজিবি-১৬ এর মাদকদ্রব্য ধ্বংস ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, শুধু দায়িত্ব ও কর্তব্য পালন না, মাদকের বিরুদ্ধে কাজ করার ইচ্ছা শক্তিও থাকতে হবে। নওগাঁ সীমান্তে ভারতের পাঁচটি চৌকি আছে। আর আমাদের বিজিবি সদস্যদের অন্ধকারে জঙ্গল ও পানির ভেতর দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। সীমান্তে বিজিবিদের যাতায়াত সুবিধা ও আলোকিত করতে সোলার সিস্টেমের ব্যবস্থার জন্য প্রজেক্ট পাঠানো হয়েছে। যাতে সীমান্তে মাদক ও চোরাচালান কমে যায়।

Naogaon-Madok-Pic_02

তিনি আরও বলেন, যারা মাদক ব্যবসায়ী তারা মাদক ছেড়ে দেন। নিজের বাড়িটা সামলান। সন্তানরা মাদকের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে কি-না তা খেয়াল রাখুন।

নওগাঁ ১৬ বিজিবর অধিনায়ক লে. কর্নেল একেএম আরিফুল ইসলামের সভাপতিত্বে এ সময় আরও বক্তব্য দেন রাজশাহী সদর দফতরের সেক্টর কমান্ডার কর্নেল তুহিন মোহাম্মদ মাসুদ, ১৪ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল জাহিদ হাসান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) ফারজানা হোসেন, জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক একেএম বেদারুল ইসলাম, সীমান্ত পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গোলাম রসুল সাকলায়েন প্রমুখ।

পরে গত তিন বছরে সীমান্তে বিভিন্ন সময়ে উধারকৃত মাদকের মধ্যে- বিভিন্ন প্রকার মদ ৮০১ বোতল, ফেনসিডিল ১৫ হাজার ৬৪১ বোতল, গাঁজা ২৫ কেজি, ইয়াবা ১৫৫ পিস, হেরোইন ২৫ গ্রাম, টাপেন্টা ১৫ পিস, ভারতীয় নেশা জাতীয় ইনজেকশন ৩৪৪ পিস, বাংলাদেশ নেশা জাতীয় বোতল ৪৭ পিস, চোলাই মদ ১৪৬ লিটার, কীটনাশক ১ বোতল ধ্বংস করা হয়। যার সিজার মূল্য ৭৭ লাখ ৪৬ হাজার ৮৫৫ টাকা।

আব্বাস আলী/আরএআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]