স্কুলছাত্রীসহ শিক্ষক আটক, বাড়িতে স্ত্রীর দাবিতে কলেজছাত্রী হাজির

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৯:৫৭ পিএম, ২২ নভেম্বর ২০১৯

৭ম শ্রেণির স্কুলছাত্রীকে নিয়ে পালাতে গিয়ে পুলিশের হাতে আটক হয়েছেন বরিশালের উজিরপুর উপজেলার শোলক কচুয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক তপন মল্লিক (৩১)। এদিকে অনার্স পড়ুয়া এক শিক্ষার্থী স্ত্রীর মর্যাদার দাবিতে শিক্ষক তপনের বাড়িতে গিয়ে অনশন করছেন।
বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে, ৭ম শ্রেণির ছাত্রীকে স্কুল থেকে জোর করে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তার বাবা। এ ঘটনায় তিনি বাদী হয়ে শুক্রবার (২২ নভেম্বর) উজিরপুর মডেল থানায় অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন।

আটক তপন মল্লিক উপজেলার কালবিলা গ্রামের সাতলা স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ ব্রজেন্দ্র নাথ মল্লিকের ছেলে ও শোলক কচুয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষক তপন মল্লিক গত বৃহস্পতিবার (২১ নভেম্বর) রাজাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের এক ৭ম শ্রেণির ছাত্রীকে স্কুল থেকে ফেরার পথে তপন মল্লিক তাকে জোর করে তুলে নিয়ে যায়। ওই দিন সন্ধ্যায় গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় তাদের গতিবিধি সন্দেহজনক হলে স্থানীয়রা অবরুদ্ধ করে রাখেন। এরপর টুঙ্গিপাড়া থানা পুলিশের হাতে সোপর্দ করে।

এদিকে একই দিন বৃহস্পতিবার উজিরপুর উপজেলার জল্লা ইউনিয়নের পীরেরপাড় গ্রামের বিধান সমদ্দারের মেয়ে অনার্স পড়ুয়া ছাত্রী যুথিকা সমদ্দার কালবিলা গ্রামে তপন মল্লিকের বাড়িতে গিয়ে স্ত্রীর মর্যাদার দাবিতে অনশন শুরু করে।

যুথিকার স্বজনরা জানান, গত ২ মার্চ বরিশাল চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে উভয়পক্ষের অভিভাবকদের উপস্থিতিতে ১০ লাখ টাকা দেন মোহরে বিবাহ সম্পাদন করা হয়। তবে কিছুদিন ধরে তপন মল্লিক যোগাযোগ না রাখায় যুথিকা তপনের বাড়িতে যেতে বাধ্য হয়।

স্থানীয়রা জানান, তপন মল্লিক ২০১৭ সালে উপজেলার ভরতসেন এলাকার এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে গ্রেফতার হয়ে হাজত বাস করেন। এরপর হারতা এলাকার শুকলাল হালদারের মেয়েকে হিন্দু ধর্মীয় রীতিতে বিয়ে করে কিছুদিন যেতে না যেতেই তাকে তাড়িয়ে দেন।

এ ব্যাপারে তপন মল্লিকের বাবা ব্রজেন্দ্র নাথ মল্লিক জানান, আমার ছেলে ৭ম শ্রেণির ওই শিক্ষার্থীকে নিয়ে একটু ঘুরতে গিয়েছিল। কেউ হয়তো তাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। এ কারণেই তাদের আটক করে পুলিশে দেয়া হয়েছে।

টুঙ্গিপাড়া থানা পুলিশের ওসি এএসএম নাসিম জাগো নিউজকে জানান, তপন মল্লিক ও ওই ছাত্রীকে স্থানীয়রা আপত্তিকর অবস্থায় অবরুদ্ধ করে। এরপর তাদের পুলিশে সোপর্দ করে। বর্তমানে তারা থানা হেফাজতে আছে।

উজিরপুর মডেল থানা পুলিশের ওসি শিশির কুমার পাল জানান, মেয়েটির বাবা থানায় অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন। আসামি তপন ও ওই স্কুলছাত্রীকে টুঙ্গিপাড়া থানা থেকে আনার জন্য ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

সাইফ আমীন/এমএএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]