গাভি ও বাছুরের লোভে খামারিকে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী
প্রকাশিত: ১০:০৪ পিএম, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯

একজোড়া গাভি বাছুরসহ চুরির উদ্দেশ্যেই পরিকল্পিতভাবে রাজশাহী নগরীর বহরমপুর এলাকার ক্ষুদ্র খামারি আবদুল মজিদকে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

হত্যা ও চুরিরকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ নগরীর রাজপাড়া থানা পুলিশ। সোমবার দুপুরের দিকে আদালতের মাধ্যমে তাদের জেলহাজতে পাঠানো হয়। এর আগে সকালে গ্রেফতারকৃতদের সাংবাদিকদের সামনে হাজির করে রাজপাড়া থানা পুলিশ।

এরা হলেন, নগরীর দাসপুর এলাকার ফাইনাল মিলের ছেলে আরিফুল ইসলাম, বহরমপুর এলাকার তাহসানের ছেলে মিলন এবং রাজপাড়া থানার বহরমপুর এলাকার আব্দুর রহমানের ছেলে জিন্দার আলী।

Rajshahi-(3)

সংবাদ সম্মেলনে আরএমপির বোয়ালিয়া জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার সাজিদ হোসেন বলেন, ঘটনার চারদিন আগে হত্যা করে গরু চুরির পরিকল্পনা করেন ওই তিনজন। এরপর ৪ ডিসেম্বর দিবাগত রাতে গরু চুরির উদ্দেশ্যে মালিক আবদুল মজিদকে নেশা জাতীয় দ্রব্য খাইয়ে অচেতন করেন।

এরপর তাকে শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা চালান অভিযুক্ত মিলন ও জিন্দার। কিন্তু তাতে ব্যর্থ হন। পরে আরেক অভিযুক্ত আরিফুল মাফলার দিয়ে গলা পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন খামারিকে। মৃত্যু নিশ্চিত হবার পরই খামার থেকে দুটি গাভি ও দুটি বাছুর নিয়ে নিয়ে যান ওই তিনজন।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ জানায়, প্রথমে পুলিশ গরু চুরি ও বিক্রির সঙ্গে জড়িত নারীসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করে। পরে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয় মূল পরিকল্পনাকারী ও হত্যাকারীদের।

Rajshahi-(3)

গ্রেফতার ওই ৫ জন হলেন, নগরীর রাজপাড়া থানার বহরমপুর এলাকার মৃত আব্দুল গফুরের ছেলে আব্দুর রহমান বাবু, হড়গ্রাম নতুনপাড়া এলাকার হারুনের ছেলে রবিউল ইসলাম, মৃত আছির উদ্দিনের ছেলে আব্দুস সামাদ, জাবেদ আলীর ছেলে আবুল কাশেম ও নগরীর চন্দ্রিমা থানা এলাকার আলীর স্ত্রী আশুরা বেগম ।

নিহতের ছেলে আবদুস সালামের দায়ের করা মামলায় রোববার তাদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

পুলিশ জানায়, চুরি হওয়া গরুগুলো উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া একটি ভটভটিও জব্দ করা হয়েছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ।

ফেরদৌস/এমএএস/জেআইএম