বেনাপোলে ভুয়া ফটো সাংবাদিক আটক

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি বেনাপোল যশোর
প্রকাশিত: ১০:৪০ পিএম, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯

যশোরের বেনাপোল চেকপোস্ট এলাকা থেকে ভারতগামী এক পাসপোর্টযাত্রীর কাছ থেকে ১২ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগে আকাশ খান (২০) নামের এক ভুয়া ফটো সাংবাদিককে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা। মঙ্গলবার সকালে বেনাপোল চেকপোস্ট এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে।

আটক আকাশ বেনাপোল পোর্ট থানার তালসারী গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে। ভুক্তভোগী পাসপোর্ট যাত্রী সাতক্ষীরা জেলার আশাশনি উপজেলার বুধহাটা গ্রামের। তিনি জানান, চিকিৎসা করাতে পাসপোর্টে ভারতে যাওয়ার জন্য বেনাপোল চেকপোস্ট এলাকায় আসলে আকাশসহ তিন-চারজন যুবক তার পাসপোর্টের কাজ করে দেওয়ার কথা বলে তার কাছ থেকে জোর করে পাসপোর্ট ও পয়ত্রিশ হাজার বাংলাদেশি টাকা নিয়ে নেয়। টাকা নিয়ে সেখান থেকে কৌশলে বার হাজার টাকা লুকিয়ে রাখে। আবার তাকে টাকাগুলো ফিরিয়ে দেন।

তিনি আরও জানান, টাকা ফিরিয়ে দিয়ে তারা বলে ভারতে গিয়ে টাকা ভাঙিয়ে নেবেন। এ সময় তিনি ভারতে গিয়ে টাকা ভাঙাতে গেলে দেখেন সেখান থেকে প্রতারকরা ১২ হাজার টাকা নিয়ে নিয়েছে। পরে তিনি ভারতীয় চেকপোস্টের বিএসএফ এর সহায়তায় দেশে এসে বিজিবিকে জানালে বিজিবি আকাশকে আটক করে।

পরে তার শরীর তল্লাশী করে পকেট থেকে ছিনতাইয়ের ১২ হাজার টাকা ও দৈনিক নওয়াপাড়া পত্রিকা ৫ বছর মেয়াদের দুটি পরিচয়পত্র পাওয়া যায়।

আটক প্রতারক আকাশ জানায়, বড় আঁচড়া গ্রামের রাজু হোসেন, আলপিন ও মাসুম তাকে ওই যাত্রীকে ভারতে দিয়ে আসতে বলে। তাদের কথামতো সে ওই যাত্রীকে ভারতে দিয়ে আসে। আটকের পর আকাশ নিজেকে দৈনিক নওয়াপাড়া পত্রিকার ফটো সাংবাদিক পরিচয় দেয়।

পরে ছিনতাইয়ের কথা স্বীকার করে জানায়, বেনাপোলের কামাল হোসেন নামে এক সাংবাদিক তাকে এই পরিচয়পত্র দুটি তৈরি করে দিয়েছেন। বেনাপোল চেকপোস্ট আইসিপি ক্যাম্পের নায়েক সুবেদার মিজানুর রহমান জানান, পাসপোর্ট যাত্রীর অভিযোগ পেয়ে আমরা তখনই অভিযান চালিয়ে আকাশ নামে এক ছিনতাইকারীকে আটক করি। এ সময় তার সাথে থাকা তিনজন কৌশলে পালিয়ে যায়। তার কাছে পত্রিকার যে পরিচয় পত্র পাওয়া গেছে সেটা ভুয়া।

বেনাপোলের একজন সাংবাদিক টাকার বিনিময়ে তাকে কম্পিউটার থেকে এই পরিচয়পত্র বানিয়ে দিয়েছে বলে আটক আসামি স্বীকার করেছে। আকাশকে বেনাপোল পোর্ট থানায় সোপর্দ করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

মো. জামাল হোসেন/এমআরএম