পদ্মায় শিকারীর ফাঁদে পরিযায়ী পাখি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী
প্রকাশিত: ০৫:০৩ এএম, ২৩ জানুয়ারি ২০২০

রাজশাহীর পদ্মায় এবারও ভিড় জমিয়েছে পরিযায়ী পাখিরা। শীত শুরুর আগে থেকেই অতিথি এসব পাখির কলতানে মুখর পদ্মা। কিন্তু পাখিদের এই স্বর্গরাজ্যে হানা দিচ্ছে শিকারীর দল। ফাঁদ পেতে শিকার করে নিয়ে যাচ্ছে পাখি। সৌখিন ও পেশাদার শিকারীরা বন্দুক, বিষটোপ ও বিভিন্ন ধরনের ফাঁদ পেতে এসব পাখি শিকার করছেন।

বুধবার ভোরে এমনই চোরা শিকারীকে ধাওয়া করে বস্তাভর্তি ২৯টি খয়রা চখাচখি পাখি উদ্ধার করে রাজশাহী বিভাগীয় বন বিভাগের বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ। পাখিগুলো পরে নেয়া হয়েছে রাজশাহীর বন্যপ্রাণী উদ্ধার ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে।

জানা গেছে, বুধবার পবা উপজেলার হরিপুর এলাকায় অভিযান চলাকালে এক ব্যক্তিকে দুটি বস্তা নিয়ে হেঁটে যেতে দেখেন বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের কর্মকর্তারা। সন্দেহের ভিত্তিতে ওই ব্যক্তিকে থামার জন্য সংকেত দিলে তিনি পালিয়ে যান। পরে বস্তা দুটি থেকে আহতাবস্থায় ২৯টি খয়রা চখাচখি পাখি উদ্ধার করা হয়।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের রাজশাহী শাখার জুনিয়র ওয়াইল্ড লাইফ স্কাউট মিজানুর রহমান জানান, পরিযায়ী পাখি রক্ষায় রাজশাহীর বিভিন্ন এলাকায় নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হয়ে থাকে। উদ্ধার করা পাখিগুলো পরিযায়ী। সাধারণত শীতের সময় খাবার বা প্রজননের জন্য পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চল থেকে এখানে আসে।

তিনি আরও জানান, উদ্ধার করা পাখিগুলোর মধ্যে কয়েকটি আহত হওয়ায় বন্যপ্রাণী উদ্ধার ও পুনর্বাসন কেন্দ্রে চিকিৎসা করা হচ্ছে। পুরোপুরি সুস্থ হলে নিরাপদ পরিবেশে অবমুক্ত করা হবে।

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত পাখিশুমারি অনুযায়ী, রাজশাহীর পদ্মার চরখিদিরপুর, খানপুর, মাঝারদিয়ার, ১০ নম্বর চর ও চারঘাটের ৩৯ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে দেখা গেছে ৩৭ প্রজাতির চার হাজার ২৫টি জলচর পাখি। এর মধ্যে ২৭ প্রজাতির পরিযায়ী পাখি রয়েছে।

প্রায় এক হাজার ১০০টি পিয়াং হাঁস, সৈকত পাখি গ্রুপের চা পাখি ৩৩০টি এবং দুর্লভ বৈকাল তিলিহাঁস একটি ও চারটি কালামানিকজোড় পাখি পাওয়া গেছে এবার।

ফেরদৌস সিদ্দিকী/বিএ