শ্রদ্ধার ফুলে ভরে গেছে শহীদ মিনারের বেদি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক রাজশাহী
প্রকাশিত: ০১:১০ পিএম, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

শ্রদ্ধার ফুলে ভরে গেছে রাজশাহীর শহীদ মিনারগুলোর বেদি। মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে দিবসের প্রথম প্রতর থেকে শহীদ মিনাগুলোতে ভিড় জমাতে থাকেন জনতা।

শুক্রবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকালে প্রভাতফেরি নিয়ে শহীদ মিনারে গিয়ে ঠেকেছে জনতার স্রোত। নানা আনুষ্ঠানিকতায় ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় রাজশাহীবাসী।

একুশের প্রথম প্রহরে রাজশাহী কলেজের শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এ সময় কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক হবিবুর রহমানসহ অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

এরপর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনের নেতৃত্বে রাজশাহী কলেজ শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহানগর আওয়ামী লীগ। এ সময় মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহীন আকতার রেনী, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি ডা. আনিকা ফারিহা জামান অর্নাসহ মহানগর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এখানে আলাদাভাবে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. হুমায়ুন কবীর, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু ও রাজশাহীর সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল।

কোর্ট শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার হুমায়ুন কবীর খোন্দকার, জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি একেএম হাফিজ আক্তার ও রাজশাহী পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহিদুল্লাহ প্রমুখ।

নগরীর ভুবনমোহন শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়ন। এ সময় বিএফইউজের সহ-সভাপতি মামুন-অর-রশিদ, রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাজী শাহেদ সভাপতি, সহ-সভাপতি শরীফ সুমন, সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হক ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান রকি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এখানে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ ও বাসদসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সব সরকারি-বেসরকারি এবং আধা-সরকারি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়। এছাড়া যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাব-গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে শহীদ দিবস ও মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করা হয়।

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মহানগরীর হেতেম খাঁ মসজিদে ভাষাশহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে বাদ জুমা কোরআনখানি ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনা করা হবে। মহানগরীর সড়ক দ্বীপসমূহ এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে বাংলা বর্ণমালা সংবলিত ফেস্টুন দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে।

সকাল থেকে রাজশাহী শিশু একাডেমিতে স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের চিত্রাঙ্কন, বাংলায় সুন্দর হাতের লেখা, ভাষার গান, দেশাত্মবোধক গান ও রচনা লিখন প্রতিযোগিতা চলছে। শিল্পকলা একাডেমিতে বিকেলে রয়েছে ভাষা সৈনিকদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

এছাড়া সন্ধ্যায় গণযোগাযোগ অধিদফতরের উদ্যোগে মহানগরীর আলুপট্টি বঙ্গবন্ধু চত্বর, সাহেব বাজার ও লক্ষ্মীপুরসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে ভ্রাম্যমাণ চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হবে।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (সদর) গোলাম রুহুল কুদ্দুস জানিয়েছেন, মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে। পুলিশ মোতায়েনের পাশাপাশি র্যাব সদস্যরাও টহল দিচ্ছে। এছাড়া গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা সাদা পোশাকে কর্তব্য পালন করছেন। প্রথম প্রহর থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা ছিল রাজশাহী কলেজ শহীদ মিনার, ভুবন মোহন শহীদ মিনার ও কোর্ট শহীদ মিনার এলাকা।

ফেরদৌস সিদ্দিকী/এএম/এমকেএইচ