ছিনতাই করা ট্রলার বিক্রি করতে গিয়ে ধরা বাবা-ছেলে হত্যার ৩ খুনি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৯:২৮ পিএম, ০৫ জুলাই ২০২০
ফাইল ছবি

বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলায় বাবা-ছেলেকে হত্যা পর ছিনতাই করা ট্রলার বিক্রি করতে গিয়ে তিন খুনি ঢাকার কেরানীগঞ্জে আটক হয়েছেন। উদ্ধার করা হয়েছে ছিনতাই হওয়া ট্রলারটি।

রোববার (৫ জুলাই) বিকেল ৩টার দিকে কেরানীগঞ্জের তেলঘাট এলাকা থেকে তাদের আটক করে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশ। আটক তিনজন হলেন- বাদল হাওলাদার (৩২), সানি হাওলাদার (১৬) ও শাহিন খান (২২)। তাদের বাড়ি বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার দুধল গ্রামে।

শনিবার (৪ জুলাই) সকাল ১০টার দিকে বাকেরগঞ্জ উপজেলার কবাই ইউনিয়নের চরলক্ষ্মীপাশা গ্রামের দুর্গম এক চরসংলগ্ন পাণ্ডব নদীর তীর থেকে হেলাল উদ্দীন হাওলাদার (৫৫) নামে এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এর আগে শুক্রবার (৩ জুলাই) রাত ৭টার দিকে চরলক্ষ্মীপাশা গ্রামের দুর্গম চর থেকে হেলাল উদ্দীন হাওলাদারের ছেলে ইয়াসিন হাওলাদারের (২০) গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত বাবা-ছেলের বাড়ি পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার কলারদোয়ানিয়া গ্রামে। তারা বর্ষা মৌসুমে ‘চাই’ (মাছ ধরার জন্য বাশের কঞ্চি দিয়ে তৈরি) বিক্রি করতেন এবং অন্য সময় কৃষিকাজ করে সংসার চালাতেন। গত ২৭ জুন একটি ট্রলার ভাড়া নিয়ে কলারদোয়ানিয়া থেকে তারা বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলায় এসেছিলেন ‘চাই’ বিক্রি করতে। বিভিন্ন হাটে ঘুরে ঘুরে তারা ‘চাই’ বিক্রি করতেন। শুক্রবার সকালে তারা কবাই ইউনিয়নের শতরাজ হাটে চাই বিক্রি করেছেন। শুক্রবার বিকেল থেকে তারা নিখোঁজ ছিলেন।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহ জামান জানান, তেলঘাট এলাকা থেকে একটি ট্রলারসহ বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার তিন ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। তারা ট্রলার বিক্রি করতে কেরানীগঞ্জে এসেছিলেন। তবে তাদের গতিবিধি দেখে সন্দেহ হলে স্থানীয় ট্রলারচালক ও মালিকরা পুলিশে খবর দেন। পরে পুলিশ গিয়ে থানায় তাদের আটক করে থানায় নিয়ে আসেন।

ওসি মো. শাহ জামান জানান, এরই মধ্যে বিষয়টি বরিশাল জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানানো হয়েছে। জোড়া খুনের অভিযোগ থাকায় তাদের বরিশালে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশের ওসি আবুল কালাম জানান, ঢাকার কেরানীগঞ্জে বাকেরগঞ্জের তিনজন ব্যক্তি আটকের বিষয়টি জেনেছি। তারা এই জোড়া খুনের সঙ্গে জড়িত কি-না তা খোঁজ নেয়া হচ্ছে।

তবে সংশ্লিষ্ট অপর একটি সূত্র জানায়, আটক ওই তিনজন ট্রলার ছিনতাইয়ের জন্য তারা বাবা-ছেলেকে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন। তাদের কাছ থেকে ছিনতাই হওয়া ট্রলারটিও উদ্ধার করা হয়েছে।

এদিকে জোড়া খুনের ঘটনায় শনিবার (৪ জুলাই) রাতে নিহত হেলাল উদ্দীন হাওলাদারের স্ত্রী ও ইয়াসিন হাওলাদারের মা নাছিমা বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা তিনজনকে আসামি করে মামলা করেছেন বলে বাকেরগঞ্জ থানার ওসি আবুল কালাম জানিয়েছেন।

নিহত হেলাল উদ্দীনের ভাই বাদশা হাওলাদার জানান, তিনিসহ তার ভাই হেলাল উদ্দীন ও ভাতিজা ইয়াসিন হাওলাদার গত ২৭ জুন ‘মায়ের পরশ’ নামে একটি ট্রলার ভাড়া নিয়ে কলারদোয়ানিয়া থেকে বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলায় গিয়েছিলেন ‘চাই’ বিক্রি করতে। বিভিন্ন হাটে ঘুরে ঘুরে তারা ‘চাই’ বিক্রি করতেন। শুক্রবার (৩ জুলাই) সকালে তারা কবাই ইউনিয়নের শতরাজ হাটে চাই বিক্রি করেছেন। বাদশা হাওলাদার জানান, তিনি শতরাজ হাটে থাকলেও তার ভাই ও ভাতিজা ট্রলারে অন্যত্র রওনা হন। শুক্রবার বিকেলে তাদের মোবাইল ফোনে পাওয়া যাচ্ছিল না।

শুক্রবার রাত ৭টার দিকে চরলক্ষ্মীপাশা গ্রামের দুর্গম চর থেকে ভাতিজা ইয়াসিন হাওলাদারের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরদিন শনিবার (৪ জুলাই) সকাল ১০টার দিকে ওই চরসংলগ্ন পাণ্ডব নদীর তীর থেকে তার ভাই হেলাল উদ্দীন হাওলাদারের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তবে তাদের ট্রলারটি পাওয়া যাচ্ছিল না।

পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার কলারদোয়ানিয়া গ্রামের আরেক ‘চাই’ বিক্রেতা মো. হাসান জানান, শুক্রবার সকালে তিনি বাকেরগঞ্জ উপজেলার শতরাজ হাটে যান। সেখানে হেলাল উদ্দীন এবং তার ছেলে ইয়াসিন হাওলাদারের সঙ্গে দেখা হয়। তারা ট্রলারে করে মাছ ধরার ৬০টি ‘চাই’ নিয়ে এসেছিলেন।

মো. হাসান জানান, শতরাজ হাটে এক লোকের কাছে তারা ৬০টি ‘চাই’ বিক্রি করেন। পরে ওই ‘চাই’ ক্রেতার বাড়িতে তারা পৌঁছে দিতে যান। এরপর তাদের আর কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি। পরে লোকজনের কাছে শুনেছি বাবা-ছেলের মরদেহ নদীসংলগ্ন চরে পাওয়া গেছে। তখনই ধারণা করেছিলাম ট্রলার ছিনতাইয়ের পর তাদের হত্যা করে মরদেহ চরলক্ষ্মীপাশা গ্রামে ফেলে রেখে গেছে দুর্বৃত্তরা।

এদিকে শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে নিহত বাবা-ছেলের মরদেহ পিরোজপুরের কলারদোয়নিয়ায় নিয়ে যাওয়া হয়। রাত ১২টার দিকে তাদের দাফন সম্পন্ন হয়।

সাইফ আমীন/বিএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]