সুখানপুকুরে ঔষধি গাছ রোপণ করল ‘প্রজন্ম’

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:৩২ পিএম, ১১ সেপ্টেম্বর ২০২০

চলছে বর্ষা মৌসুম। গাছ লাগানোর মোক্ষম সময় যাচ্ছে এখন। সময়টিকে কাজে লাগাতে ভোলেনি বগুড়ার গাবতলী উপজেলার সুখানপুকুর ইউনিয়নের সামাজিক সংগঠন প্রজন্ম। সংগঠনটি সুখানপুকুর ইউনিয়নের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও পতিত জমিতে প্রায় ৭০টি ওষধি গাছ লাগিয়েছে।

প্রজন্মের সভাপতি ও ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সংসদের সদস্য মো. সাহানুর ইসলাম সাকিল জাগো নিউজকে জানান, তাদের সংগঠনটি সুখানপুকুর এলাকার অবস্থিত ১৪টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তিনটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও একটি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে বিভিন্ন ওষধি গাছ লাগিয়েছেন। এছাড়াও মসজিদ মাদরাসা, রেলস্টেশন, খাদ্য গুদাম, এনজিও, ভূমি অফিসসহ গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে গাছ রোপণ করেছেন।

প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে রোপণ করা হয়েছে ২-৩টি করে গাছ। যেসব প্রতিষ্ঠানে জায়গা বেশি সেখানে তিনটা, যেসব প্রতিষ্ঠানে জায়গায় কম সেখানে দুটি গাছ রোপণ করা করা হয়েছে। সম্প্রতি এভাবে প্রায় ৭০টি গাছ লাগিয়েছেন প্রজন্মের সদস্যরা তিন দিনব্যাপী কার্যক্রম পরিচালনা করে।

নিম, হরতকি, বহেরা, অর্জুন, আমলকি, কাটবাদাম, হিজল ও দেবদারু গাছ লাগিয়েছেন তারা বলেও জানান তিনি। ডওর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণেও গাছ লাগিয়েছে প্রজন্ম। বিদ্যালয়টির সহকারী শিক্ষক মো. ছরোয়ার হোসেন নয়ন জাগো নিউজকে বলেন, ‘প্রজন্ম নামে একটা সংগঠন আমাদের স্কুলে দুটি গাছ লাগিয়েছে। একটা আমলকি, আরেকটা দেবদারু গাছ লাগিয়েছে আমাদের এখানে। ৪-৫ দিন আগে তারা লাগিয়েছে’।

Projonmo1.jpg

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক যুগ্ম ব্যবস্থাপক ও মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস ছাত্তার জাগো নিউজকে বলেন, ‘প্রজন্ম এ এলাকার স্কুল, কলেজ, গোডাউন, বিভিন্ন জায়গায় গাছ লাগিয়েছে। তারা আমাকেও জানিয়েছিল গাছ লাগানোর কথা। অসুস্থ থাকায় অংশ নিতে পারিনি’।

প্রজন্মের সভাপতি সাহানুর ইসলাম বলেন, ‘মুজিববর্ষের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রজন্মের এই বৃক্ষরোপণ কর্সসূচি। আমরা প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে ওষধি গাছ যেমন হরতকি, বহেরা, অর্জুন, আমলকি ও নিমের গাছ রোপণ করেছি। যেহেতু উপলক্ষটা বেশ তাৎপর্যপূর্ণ, তাই চেষ্টা করেছি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষার পাশাপাশি মানুষ যেন বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্তির জন্য প্রকৃতির কাছে সহযোগিতা পায় এবং প্রতিষ্ঠানের পরিবেশ থাকে স্বাস্থ্যসম্মত’।

স্থানীয় আব্দুস ছাত্তার আরও বলেন, ‘তারা সবাই শিক্ষিত ছেলে। তারা স্বাধীনতার চেতনায় উজ্জ্বীবিত। আওয়ামী লীগের অনেক গ্যাপ দেখি যে, তরুণ প্রজন্মকে তারা খুব একটা টানতে পারেনি। মৌলবাদীরাই দখল করে নিয়েছে। কিন্তু প্রজন্ম যারা করে, তারা স্বাধীনতার চেতনায় উজ্জ্বীবিত। প্রজন্ম শুরু থেকেই বিভিন্ন জনহিতকর কাজ, সচেতনামূলক কাজ করে যাচ্ছে’।

করোনার সময় সচেতনতা বৃদ্ধি, সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ, খাদ্য বিতরণ, দরিদ্র কৃষকের ধান কেটে দেয়াসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করেছে প্রজন্ম। যাত্রার পর থেকেই তারা বাল্যবিবাহ, মাদক প্রতিরোধসহ বিভিন্ন ধরনের উন্নয়নমূলক সামাজিক কাজ করে আসছে সংগঠনটি বলেও জানান আব্দুস ছাত্তার।

পিডি/এমআরএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]