যৌতুক না পেয়ে নির্যাতন করে গৃহবধূকে হত্যা!

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বরিশাল
প্রকাশিত: ০৮:২৪ পিএম, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০
ফাইল ছবি

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার নওপাড়া গ্রামে যৌতুক না পেয়ে রেশমা আক্তার (২২) নামে এক গৃহবধূকে নির্যাতনের পর শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় রোববার (২৭ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে গৃহবধূর শাশুড়ি ঝর্ণা খানমকে (৫০) জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ থানায় নিয়ে গেছে। পাশাপাশি গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

রেশমা আক্তার উপজেলার কটকস্থল গ্রামের আবু ফকিরের মেয়ে। নওপাড়া গ্রামের আ. রাজ্জাক শিকদারের ছেলে নয়ন শিকদারের (২৮) সঙ্গে তিন বছর আগে তার বিয়ে হয়।

বিয়ের সময় নয়ন শিকদারকে তিন ভরি স্বর্ণালঙ্কারসহ তিন লক্ষাধিক টাকার মালামাল যৌতুক দেয়া হয়। নয়ন শিকদার ও রেশমা দম্পতির ১৮ মাসের একটি ছেলেসন্তান রয়েছে।

রেশমার বাবা আবু ফকির অভিযোগ করে বলেন, নয়ন মাদকে আসক্ত। রেশমাকে বিয়ে দেয়ার আগে আমরা তার নেশা করার কথা জানতাম না। কয়েক মাস আগে মাদক সেবনের সময় নয়ন থানা পুলিশের হাতে আটক হয়েছিল। সে কোনো কাজও করত না। বিয়ের এক বছরের মাথায় পানের বরজের কথা বলে এক লাখ টাকা যৌতুক নেয়। পানের বরজ না করে সে টাকা নেশা করে নষ্ট করে দেয়। নেশা করতে গিয়ে নয়নের অনেক ধারদেনা হয়ে যায়। এরপর নয়ন দেনার টাকা পরিশোধের জন্য আরও আড়াই লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে। রেশমা টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাকে মারধরসহ নানাভাবে নির্যাতন করা হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পাঁচদিন আগে নয়ন ও তার বাবা-মা রেশমাকে নির্যাতন করে আমার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়।

শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে নয়ন ও তার এক বন্ধু এসে রেশমা ও সন্তানকে তাদের সঙ্গে নিয়ে যায়। শনিবার রাত দেড়টার দিকে রেশমাকে হত্যার খবর পাই। রোববার ভোরে জামাতার বাড়ি নওপাড়া গ্রামে যাই। সেখানে গিয়ে দেখি রেশমার মরদেহ খাটের ওপর ফেলে রাখা হয়েছে। নয়ন ও তার বাবা বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছেন।

আবু ফকির বলেন, আড়াই লাখ টাকা যৌতুক না পেয়ে তারা আমার মেয়ে রেশমাকে হত্যা করেছে। আমি তাদের কঠোর শাস্তি দাবি করছি।

গৌরনদী মডেল থানা পুলিশের ওসি গোলাম ছরোয়ার বলেন, খবর পেয়ে ওই বাড়ি থেকে রেশমার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রোববার দুপুরে মর্গে পাঠানো হয়েছে। রেশমার শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য রেশমার শাশুড়িকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। পলাতক নয়ন ও তার বাবাকে খুঁজছে পুলিশ।

সাইফ আমীন/এএম/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]