সিলেটে গণধর্ষণ, সর্বশেষ আসামি তারেকও পাঁচ দিনের রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক সিলেট
প্রকাশিত: ০৭:১৪ পিএম, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০

সিলেট মুরারীচাঁদ কলেজ (এমসি কলেজ) ছাত্রাবাসে স্বামীকে আটকে রেখে গৃহবধূকে গণধর্ষণের মামলায় তারেকুল ইসলাম তারেক (২৮) নামের আরও এক আসামিকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

বুধবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে গণধর্ষণ মামলার এজহারভুক্ত আসামি ছাত্রলীগ কর্মী তারেককে কড়া নিরাপত্তায় সিলেটের মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতের বিচারক মো. আবুল কাশেমের আদালতে হাজির করে পুলিশ।

এসময় তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহপরাণ থানা পুলিশের ওসি তদন্ত ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য।

রিমান্ড আবেদন শুনানির পর আদালতের বিচারক তারেকের পাঁচদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার (২৯ সেপ্টেম্বর) তারেকুল ইসলাম তারেককে সুনামগঞ্জের দিরাই থেকে গ্রেফতার করে র্যাব-৯। তারেক গ্রেফতার এড়াতে তার মুখভর্তি দাড়ি ও চুল ফেলে দিয়ে ছদ্মবেশ ধারণ করে।

এর মধ্যদিয়ে এ মামলার এজাহারভুক্ত সব আসামিসহ গ্রেফতারকৃত আটজনকেই পাঁচ দিন করে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। গত সোমবার, মঙ্গলবার ও আজ এ তিনদিনে কয়েক দফায় আসামিদের আদালতে হাজির করে রিমান্ডে নেয় পুলশ।

তবে রিমান্ড শুনানিকালে আসামির পক্ষে আজও কোনো আইনজীবী আদালতে উপস্থিত ছিলেন না। তবে রাষ্ট্রপক্ষে বিপুল সংখ্যক আইনজীবী শুনানিতে অংশ নেন। এদিকে, আদালতে তারেককে নিয়ে আসা হলে উৎসুক জনতা তাকে দেখে ঘৃণা প্রকাশ করে বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দেন।

jagonews24

রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে অংশ নেয়া সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত পিপি মো. মাহফুজুর রহমান বলেন, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তারেককে আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালতের বিচারক ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। তবে এসময় তার পক্ষে কোনো আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন না।

এ নিয়ে চাঞ্চল্যকর এ মামলায় এজাহারনামীয় সব আসামিসহ সিলেট রেঞ্জ পুলিশ ও র্যাব-৯ এর হাতে গ্রেফতার আটজনের মধ্যে সাতজনকে পাঁচ দিন করে রিমান্ডে নিল পুলিশ। এর আগে গত সোম ও মঙ্গলবার দুই দফায় গ্রেফতার ছয় আসামিকে রিমান্ডে নেয়া হয়।

প্রসঙ্গত, গত ২৫ সেপ্টেম্বর শুক্রবার রাতে এমসি কলেজে স্বামীর সঙ্গে বেড়াতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হন এক গৃহবধূ। রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্বামীর কাছ থেকে ওই গৃহবধূকে জোর করে তুলে নিয়ে ছাত্রাবাসের সামনে প্রাইভেটকারের মধ্যেই পালাক্রমে গণধর্ষণ করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ সময় কলেজের সামনে তার স্বামীকে আটকে রাখে দুজন।

এ ঘটনায় ভিকটিমের স্বামী বাদী হয়ে শাহপরান থানায় মামলা করেছেন। মামলায় ছাত্রলীগের ছয় নেতাকর্মীসহ অজ্ঞাত তিনজনকে আসামি করা হয়। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মীরা সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক রণজিৎ সরকারের অনুসারী বলে জানা গেছে।

এ ঘটনায় গত রোববার দুপুরে সিলেট মহানগর তৃতীয় আদালতের হাকিম শারমিন খানম নিলার কাছে সেই রাতের ঘটনার জবানবন্দি দেন নির্যাতনের শিকার তরুণী। এসময় তিনি ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা দেন। আদালত তরুণী গৃহবধূর জবানবন্দি রেকর্ড করে তাকে পরিবারের জিম্মায় দিয়ে দেন।

ছামির মাহমুদ/এমএএস/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]