মানবিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন এসিল্যান্ড কামরুল

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:৪৩ এএম, ২১ অক্টোবর ২০২০

বাবু বাজার ব্রিজের ওপর ওভারটেকিং করতে গিয়ে নিয়ন্ত্রয়ণ হারিয়ে উল্টে যায় একটি লেগুনা। গুরুতর আহত হয় লেগুনার তিন যাত্রী। আহতদের উদ্ধার করে নিজের গাড়িতে করেই দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যান কেরানীগঞ্জের এসিল্যান্ড ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল হাসান সোহেল।

ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ৯টায়। প্রতক্ষ্যদর্শী মো. সোহেল নামে এক পথচারী জানাান, আজ সকালে বাবু বাজার থেকে কদমতলীতে আসার পথে ব্রিজের ওপর একটি লেগুনা সামনের একটি সিএনজিকে ওভারটেক করতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে অনেক দূরে উল্টে যায়।

এতে লেগুনার তিন যাত্রী গুরুতর আহত হন। আহতরা রাস্তায় পাশেই পড়েছিলেন। রক্তাক্ত থাকায় কেউ তাদের ধরার সাহস করছিল না। এ সময় ব্রিজের ওপর দিয়েই পার হচ্ছিলেন কেরানীগঞ্জের এসিল্যান্ড কামরুল হাসান সোহেল।

তিনি ব্রিজের ওপর জটলা দেখে গাড়ি থামিয়ে নিজে ও তার ড্রাইভারকে নিয়ে আহতদের তার গাড়িতে উঠান। এরপরে তাদের প্রথমে ইবনে সিনা হাসপাতাল পরে সেখান থেকে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান।

ব্রিজের ওপরে এই সময়ে অনেক জ্যাম থাকে। কারণ সবাই তখন যার যার কর্মস্থলে যায়। সবাই দেখেছে লোকগুলারে আহত অবস্থায় পড়ে থাকতে। কিন্তু কেউ উদ্ধার করেনি, কেউ এগিয়ে আসেনি তাদের পাশে। তিনি উদার মনের পরিচয় দিলেন।

কদমতলীতে ট্রাফিক পুলিশের দায়িত্বে থাকা কেরানীগঞ্জ দক্ষিণের সার্জেন্ট আবুল বাসার জানান, সকালে আমি কদমতলীতে ডিউটি করছিলাম। সাড়ে ৯টার দিকে খবর পাই ব্রিজের ওপরে একটি দুর্ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পারি একটি লেগুনা ওভারটেকিং করতে গিয়ে উল্টে যায়।

এ সময় লেগুনাতে থাকা মো. শিমুল (২৭), আবুল হোসেন (৫০), মো. অন্তর (১৪) নামে তিন যাত্রী গুরুতর আহত হন। আহতদের এসিল্যান্ড স্যার উদ্ধার করে মিটফোর্ড হাসপাতালে নিয়ে যান এবং নিজ দায়িত্বে চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করে আহতদের পরিবারকে খবর দেন। দুর্ঘটনা কবলিত লেগুনাটি কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় রাখা হয়েছে।

কেরানীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল হাসান সোহেল বলেন, বিপদে অন্যের পাশে দাঁড়ানো মানুষের নৈতিক দায়িত্ব। মঙ্গলবার সকালে দুর্ঘটনাস্থল দিয়ে যখন যাচ্ছিলাম তখন দেখলাম সবাই দাঁড়িয়ে আহতদের দেখছে কিন্তু কেউ তাদের উদ্ধার করার চেষ্টা করছে না। আমাদের সবার উচিত মানবিক হওয়া। দেশের প্রতিটা নাগরিকের উচিত তার নাগরিক দায়িত্ব পালন করা। তবেই দেশ এগিয়ে যাবে।

এমআরএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]