কক্সবাজারের অভিজাত ৪ খাবার প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ০৬:১৮ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০২০

কক্সবাজারের পর্যটন জোন কলাতলীর অভিজাত চার খাবার প্রতিষ্ঠানকে এক লাখ ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে জেলা প্রশাসন।

অভিযোগ ছিল, বাইরে থেকে অভিজাত মনে হলেও এসব হোটেলের ভেতরের পরিবেশ নোংরা। ভোক্তাদের এই অভিযোগের ভিত্তিতে বুধবার (১৮ নভেম্বর) এ অভিযান চালানো হয়। এ সময় অতিরিক্ত দাম আদায়ের অভিযোগের সত্যতাও পাওয়া গেছে।

‘অভিজাত’ ট্যাগধারী খাবার প্রতিষ্ঠান সৈকততীরের তরঙ্গ, রূপসীবাংলা, শহরের বিরাম হোটেল ও আড্ডাবাড়ির রান্নাঘর, খাবার পরিবেশন ও সংরক্ষণ ইত্যাদি দেখে রীতিমতো হতবাক হন অভিযানকারী ভ্রাম্যমাণ আদালত। এসব প্রতিষ্ঠানে রান্না করা খাদ্য ও কাঁচা মাছ-মাংস একই ফ্রিজে বিক্রির উদ্দেশ্যে সংরক্ষণ, নোংরা পরিবেশে খাবার পরিবেশনসহ নানা অভিযোগ-অসঙ্গতি ধরা পড়ে।

jagonews24

শহরের সুগন্ধা পয়েন্টের তরঙ্গ রেস্তোরাঁয় রান্না করা খাদ্য ও কাঁচা মাছ-মাংস একই ফ্রিজে সংরক্ষণ, এমআরপির চেয়ে পানির বোতলে অতিরিক্ত দাম আদায় ও অপরিচ্ছন্ন রান্নাঘরের কারণে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা গুনতে হয়েছে।

হোটেল-মোটেল জোনের রূপসী বাংলা রেস্টুরেন্টে ভ্যাটে অনিয়মের প্রমাণ পাওয়ায় ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেয় প্রশাসন।

শহরের লালদীঘিপাড়ের বিরাম হোটেলে খোলা খাবার পরিবেশন, অপরিচ্ছন্ন রান্নাঘর, ক্যাশ মেমোতে সিল-স্বাক্ষর না থাকার অভিযোগে ৩০ হাজার টাকা এবং নোংরা পরিবেশ, রান্না করা ও কাঁচা খাবার একই ফ্রিজে সংরক্ষণের অপরাধে বাজারঘাটা এলাকার আড্ডাবাড়ি রেস্তোরাঁকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

jagonews24

জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট লাভলী ইয়াসমিন সীমার নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে এসব জরিমানা করা হয়।

অভিযানে প্রসিকিউশনে থাকা নিরাপদ খাদ্য পরিদর্শকের দায়িত্বপ্রাপ্ত জেলা স্যানিটারি ইন্সপেক্টর তরুণ বড়ুয়া জানান, ‘ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন, ২০০৯’ এর বিভিন্ন ধারায় জরিমানা করা হয়েছে।

এ সময় আনসার ব্যাটালিয়নের কর্মকর্তা ও সদস্যবৃন্দ অভিযানে সার্বিক সহযোগিতা করেন।

সায়ীদ আলমগীর/এসআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]