তালাবদ্ধ ঘরে নববধূর লাশ, স্বামী পলাতক

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক সিলেট
প্রকাশিত: ০৭:০৯ পিএম, ২৩ নভেম্বর ২০২০

সিলেটে বিয়ের এক মাস ২২ দিনের মাথায় সৈয়দা তামান্না বেগম (১৯) নামে এক নববধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। সোমবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে নগরের কাজীটুলার অন্তরঙ্গ এ/৪ নম্বর ভাড়া বাসার তালাবদ্ধ ঘরের ভেতর থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনার পর থেকে নিহত নববধূর স্বামী মো. আল-মামুন পলাতক রয়েছেন।

নিহত তামান্না বেগমের পৈত্রিক নিবাস দক্ষিণ সুরমা থানার লালাবাজারের ফুলদি এলাকায়। তবে তারা বর্তমানে গোলাপগঞ্জ উপজেলার এমসি একাডেমি সংলগ্ন এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন।

নিহতের স্বামী মো. আল-মামুনের বাড়ি বরিশালের হোগলার চরে বলে জানিয়েছেন নিহতের পরিবারের সদস্যরা। তবে জাতীয় পরিচয়পত্রে তার ঠিকানা উল্লেখ করা হয়েছে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের বারুতখানা এলাকা।

নিহতের ভাই সৈয়দ আনোয়ার হোসেন জানান, রোববার (২২ নভেম্বর) দিবাগত রাত ৯টার একটু আগে তামান্নার সঙ্গে সর্বশেষ কথা বলেন তার মা। তখন কথাবার্তা স্বাভাবিক ছিল। সোমবার সকাল থেকে তামান্না ও তার স্বামী আল মামুনের মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এমনকি মামুনের আত্মীয়-স্বজনদের মোবাইল নম্বরও বন্ধ ছিল। এতে তাদের সন্দেহ হয়। দুপুরের দিকে পুলিশ নিয়ে কাজীটুলার অন্তরঙ্গ এ/৪ নম্বর ভাড়া বাসায় গিয়ে বাইরে থেকে দরজা বন্ধ দেখতে পান তারা।

পরে পুলিশ দরজার তালা ভেঙে ভেতরে ঢুকে দেখে বিছানায় তামান্নার মরদেহ পড়ে আছে। ধারণা করা হচ্ছে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে পালিয়েছেন তার স্বামী। নিহতের গলায় ফাঁস লাগানোর জখমের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, পারিবারিকভাবে গত ৩০ সেপ্টেম্বর গোলাপগঞ্জের খান কমিউনিটি সেন্টারে তামান্নার বিয়ে সম্পন্ন। স্বামী আল-মামুন নগরের জিন্দাবাজারের আল মারজান শপিং সেন্টারের ঐশী ফেব্রিক্সের মালিক। বিয়ের আগের দিন ২৯ সেপ্টেম্বর আল মামুন কাজীটুলার বাসাটি ভাড়া নিয়েছিলেন।

সিলেট মহানগর পুলিশের কোতোয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সেলিম মিঞা বলেন, ধারণা করা হচ্ছে তামান্না বেগমকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। তবে বিকেল হয়ে যাওয়ায় আজ (সোমবার) মরদেহ ময়নাতদন্ত হয়নি। মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

তিনি আরও বলেন, কী কারণে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এছাড়াও নিহতের পলাতক স্বামীকে ধরতে পুলিশের একাধিক দল মাঠে রয়েছে।

ছামির মাহমুদ/আরএআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]