শীতের সবজিতে স্বস্তি ফিরছে বাজারে

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক রংপুর
প্রকাশিত: ১২:০৩ পিএম, ২৮ নভেম্বর ২০২০

শীতকাল মানেই বাজারে বাহারি সবজির পসরা। রংপুরের বাজারে এখন শীতের সবজির সরবরাহ বাড়ায় দাম কমতে শুরু করেছে। গত সপ্তাহের তুলনায় বিভিন্ন সবজির দাম আরও কমেছে। সবজির দাম কমায় ক্রেতাদের মধ্যে কিছুটা হলেও স্বস্তি ফিরতে শুরু করেছে। তবে আলু ও পেঁয়াজের দামে স্বস্তি মিলছে না। যদিও এক সপ্তাহের ব্যবধানে দেশি পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমেছে। তবে ৬৫ টাকার নিচে দেশি পেঁয়াজের কেজি মিলছে না।

শনিবার (২৮ নভেম্বর) সকালে রংপুর সিটি বাজার, কামালকাছনা বাজার, আমতলা বাজার ও টার্মিনাল বাজার ঘুরে দেখা গেছে, শিমের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। যা গত সপ্তাহে ছিল ৫০ থেকে ৬০ টাকা। আর ফুলকপি ও বাঁধাকপি বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা কেজি দরে। বরবটি কেজিতে বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা।

বাজারে নতুন আসা শীতের আরেক সবজি শাল গম কেজিতে বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা। আর চড়া দামে বিক্রি হওয়া লাউয়ের দাম কিছুটা কমে ২৫ থেকে ৩৫ টাকার মধ্যে চলে এসেছে। যা গত সপ্তাহে ছিল ৩৫ থেকে ৪০ টাকা। লাল শাক এক আঁটি ১০ টাকা, লাউ শাক ২০ টাকা, পালং শাক ১৫ টাকা, পুঁই শাক ১৫ টাকা ও মুলা শাক ১০ টাকা আঁটি দরে বিক্রি হচ্ছে।

তবে গাজরের দাম আগের মতোই চড়া রয়েছে। বাজার ও মান ভেদে গাজরের কেজি আগের মতোই বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকা। বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকার মধ্যে এবং করলা বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকার মধ্যে। এক সপ্তাহের ব্যবধানে এ দুটি সবজির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

rongpur03

সপ্তাহের ব্যবধানে দাম অপরিবর্তিত থাকার তালিকায় রয়েছে ঢেঁড়স, ঝিঙা, পটল, উশি, কচুর লতি। অবশ্য গত সপ্তাহে এ সবজিগুলোর দাম কিছুটা কমেছে। ঢেঁড়সের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা, যা দুই সপ্তাহ আগে ছিল ৭০ থেকে ৯০ টাকা। পটলের কেজি বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা, যা দুই সপ্তাহ আগে ছিল ৫০ থেকে ৬০ টাকা। এদিকে সরকার দুই দফায় দাম বেঁধে দিলেও এখনও আলু বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪৫ টাকায়।

আলুর সঙ্গে বাড়তি দাম দিতে হচ্ছে পেঁয়াজেরও। তবে সপ্তাহের ব্যবধানে দেশি পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমেছে। গত সপ্তাহে ৭০ থেকে ৯০ টাকা কেজিতে বিক্রি হওয়া দেশি পেঁয়াজ এখন ৬৫ থেকে ৭৫ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। আমদানি করা বড় পেঁয়াজের কেজি গত সপ্তাহের মতো ৪০ থেকে ৫০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। তবে বাজারে পাতা পেঁয়াজের কেজি ৪০ টাকায় মিলছে। এতে নিম্ন আয়ের মানুষদের সুবিধা হয়েছে। কাঁচা মরিচ আগের সপ্তাহের মতো এক পোয়া (২৫০ গ্রাম) বিক্রি বিক্রি হচ্ছে ২৫ থেকে ৩০ টাকায়।

এক হালি কাঁচা কলা বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা দরে। এছাড়াও ব্রয়লার মুরগির ডিম খুচরা পর্যায়ে ৩০ টাকা হালি বিক্রি হচ্ছে। যা এক সপ্তাহ আগে ৩২ থেকে ৩৪ টাকায় বিক্রি হয়েছে। ব্রয়লার ও কক মুরগির কেজি যথাক্রমে ১২৫ থেকে ১৩০ এবং ১৮০-১৯০ টাকা।

rongpur03

সবজির দামের বিষয়ে রংপুর সিটি বাজারের ব্যবসায়ী হযরত আলী বলেন, বাজারে ফুলকপি, বাঁধাকপি, শিম ও মুলার সরবরাহ বেড়েছে। এর সঙ্গে নতুন করে শালগম ও কাঁচা টমেটো আসতে শুরু করেছে। যে কারণে সবজির দাম কমছে। সামনে সবজির দাম আরও কমবে। ১২০ টাকার শিম এখন ৪০ টাকা হয়েছে। কিছুদিন পর শিমের দাম আরও কমবে।

রংপুর সিটি বাজারে আসা জিয়াউল ইসলাম ইমন বলেন, শিম ও ফুলকপির দাম কিছুটা কমেছে। এতে ভালো লাগছে। তবে পাকা টমেটো ও গাজরের কেজি এখনও ৭০ থেকে ১২০ টাকা। প্রায় সব সবজির দাম নাগালের মধ্যে রয়েছে।

কামালকাছনা বাজারে আসা পারভীন বেগম বলেন, সরবরাহ বাড়ায় শিম ও কপির দাম কিছুটা কমেছে। তবে আলু ও পেঁয়াজ আগের মতোই ভোগাচ্ছে। বাজারে নতুন আলু আসার পরও পুরাতন আলুর কেজি ৪০ থেকে ৪৫ টাকায় কিনতে হচ্ছে। আর বাজারে দেশি পেঁয়াজের আমদানি থাকার পরও কেজি ৭০ টাকার নিচে পাওয়া যাচ্ছে না। তবুও অনেক সবজির দাম কমার ফলে কিছুটা স্বস্তি ফিরে এসেছে।

জিতু কবীর/আরএআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]