অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে কলেজ অধ্যক্ষ অবরুদ্ধ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি দিনাজপুর
প্রকাশিত: ০৭:৩৯ পিএম, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১

দিনাজপুরে দুই ঘণ্টা অবরুদ্ধ থাকার পর সেতাবগঞ্জ সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ মনজুর আলমকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) অধ্যক্ষের অপসারণ ও বকেয়া বেতন আদায়ের দাবিতে দুপুরে শিক্ষকরা তার কক্ষে অবরুদ্ধ করে রাখেন।

শিক্ষকরা জানায়, অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে সাতসদস্য বিশিষ্ট অভ্যন্তরীন অডিট কমিটি গঠন করা হয়। এ কমিটি অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দুই কোটি ৯১ লাখ ৭০ হাজার ১৭৮ টাকা আত্মসাতের প্রাথমিক সত্যতা পায়। গত বছরের ৮ ডিসেম্বর কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও বোচাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের (ইউএনও) কাছে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

এরপরও কলেজ পরিচালনা কমিটি অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করে তাকে স্বপদে বহাল রাখেন। এরমধ্যে অনার্স বিভাগের ৩৬ শিক্ষকসহ ৭০ জন শিক্ষকের বেতন বকেয়া থাকে। মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বকেয়া বেতন, অন্যান্য পাওনা আদায় ও অধ্যক্ষের অপসারণের দাবিতে অধ্যক্ষকে অবরুদ্ধ করে শিক্ষকরা। পরে বিকেল ৩টার দিকে পুলিশ ঘটনা স্থলে পৌঁছে অধ্যক্ষকে উদ্ধার করে।

ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক মো. জাকির হোসেন অভিযোগ করে বলেন, ‘অধ্যক্ষ কলেজের প্রায় তিন কোটি টাকা আত্মসাত করেছেন। তিনি কলেজের ফান্ড শুন্য করে অনার্স বিভাগের শিক্ষকদের বকেয়া বেতন দিতে গড়িমসি করছেন। তারই ফলশ্রুতিতে অধ্যক্ষের অপসারণসহ তার দুর্নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু হয়।’

jagonews24

অধ্যক্ষ মনজুর আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সঠিক নয়। অভ্যন্তরীন অডিটে যে দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়েছে তা আমি পুনঃতদন্তের জন্য কলেজের সভাপতি বরাবরে আবেদন করেছি।

এছাড়াও তিনি বলেন, ‘অনার্সের শিক্ষকদের ২/১ মাসের বেতনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আমি যদি কলেজের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়ে থাকি তাহলে আমি পদত্যাগ করবো।’

এদিকে দুদকের দিনাজপুর জেলা সমন্বিত কার্যালয়ে অধ্যক্ষ মনজুর আলমের বিরুদ্ধে একই অভিযোগ প্রদান করা হয়। গত ৫ জানুয়ারি (শুক্রবার) দুদকের উপ-পরিচালক এ এইচ আশিকুর রহমান ও সহকারী পরিচালক মো. ওবায়দুর রহমানসহ একটি তদন্ত দল সেতাবগঞ্জ কলেজে যায়। পরে কলেজের অভ্যন্তরীন অডিট কমিটির সাতজন সদস্যকে গত ১০ জানুয়ারি (বুধবার) দুদকের জেলা কার্যালয় তলব করেন। ওইদিন অডিট কমিটি লিখিতভাবে উপ-পরিচালকে নিকট অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে দুই কোটি ৯১ লাখ ৭০ হাজার ১৭৮ টাকা আত্মসাতের অভিযোগসহ দালিলিক প্রমাণাদি দাখিল করেন।

এমদাদুল হক মিলন/আরএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]