দুই চেয়ারম্যানকে অবরুদ্ধ করে প্রার্থীর সমর্থকদের বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক রংপুর
প্রকাশিত: ০৭:১৬ পিএম, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১

রংপুরের কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ পৌর নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষে রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় দুই ইউপি চেয়ারম্যানকে অবরুদ্ধ করে বিক্ষোভ করেছেন এক প্রার্থীর সমর্থকরা। এ ঘটনায় অপরপক্ষের লোকজনদের মাঝেও উত্তেজনা দেখা দেয়। দু’পক্ষের লোকজনদের মারমুখী অবস্থানে ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি।

রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ৪টার পর এ ঘটনা ঘটে। প্রায় এক ঘণ্টা পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। একই সঙ্গে দুই চেয়ারম্যানকে অবরুদ্ধ দশা থেকে মুক্ত করা হয়।

পুলিশ জানায়, রোববার (২৮ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ শেষে হারাগাছ পৌরসভার বাংলাবাজার এলাকা দিয়ে ফিরছিলেন কাউনিয়া উপজেলার বালাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ও ওই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলী এবং টেপামধুপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ওই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম। এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী এরশাদুল হকের সমর্থকরা বহিরাগত হিসেবে ওই দুই চেয়ারম্যানসহ দলীয় নেতাকর্মীদের প্রবেশের কারণে লাঠিসোটা নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন।

তাদের দাবি, হারাগাছ পৌরসভা নির্বাচনে বহিরাগত কাউকে অবস্থান করতে দেয়া যাবে না। একপর্যায়ে ওই দুই চেয়ারম্যানসহ কয়েকজন দলীয় নেতাকর্মী পাশের মসজিদে গিয়ে আশ্রয় নেন।

jagonews24

এদিকে, দুই চেয়ারম্যানকে অবরুদ্ধ করে রাখার খবর ছড়িয়ে পড়লে নৌকা মার্কার সমর্থকরাও মারমুখী অবস্থান নেন। এতে ভীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পরে মেয়র প্রার্থী এরশাদুল হক ঘটনাস্থলে গিয়ে তার সমর্থকদের শান্ত করেন। পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনাসহ মসজিদ থেকে তাদের উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যান।

এ বিষয়ে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (মাহিগঞ্জ জোন) আল ইমরান সাংবাদিকদের বলেন, ‘বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। অবরুদ্ধ দুই চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করা হয়েছে।’

এবারের নির্বাচনে মেয়র পদে পাঁচজন প্রার্থী মনোনয়ন দাখিল করলেও যাচাই-বাছাইয়ে দুজনের মনোনয়ন বাতিল হয়। তবে শেষ সময়ে গত ২৩ ফেব্রুয়ারি ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী জাহিদ হোসেন (হাতপাখা) আপিলে তার প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। এছাড়া আওয়ামী লীগ মনোনীত বর্তমান মেয়ের হাকিবুর রহমান, বিএনপির মোনায়েম হোসেন ফারুক এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী দল থেকে সদ্য বহিষ্কৃত এরশাদুল হক এরশাদ নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মেয়র পদে চারজন ছাড়াও ৯টি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৪৮ জন এবং সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

জীতু কবির/এসজে/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]