রাজশাহীতে আনসার সদস্যকে হত্যায় অভিযুক্ত আটক

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি রাজশাহী
প্রকাশিত: ০২:১৩ এএম, ১১ এপ্রিল ২০২১

দোকানের লাইট বন্ধ করাকে কেন্দ্র করে মিজানুর রহমান মিজান (৩৫) নামের এক আনসার সদস্যকে ছুরিকাঘাত করে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত প্রতিবেশী মাধব সরকারকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (১০ এপ্রিল) সাড়ে ১১টার দিকে পুঠিয়া উপজেলার বাজার থেকে তাকে আটক করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) উপ-পুলিশ কমিশনার ও নগর পুলিশের মুখপাত্র গোলাম রুহুল কুদ্দুস।

তিনি জানান, ‘ঘটনার পর থেকেই আসামি মাধব সরকারকে আটকে পুলিশের একটি বিশেষ টিম কাজ করছিল। রাতেই অভিযান চালিয়ে পুঠিয়া বাজার থেকে মাধবকে আটক করা হয়। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এ ঘটনায় বোয়ালিয়া মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হবে।’

নিহত মিজানুর রহমান মিজান হেতেমখাঁ সবজিপাড়া এলাকার মিন্টু মিয়ার ছেলে। মিজান গাজীপুরের সখিপুর এলাকায় ২৪ ব্যাটেলিয়ান আনসার বাহিনীর সদর দফতরে কর্মরত ছিলেন। তিনি আনসার সদস্যদের হ্যান্ডবল দলের জুনিয়র কোচ ছিলেন। রাজশাহীতে এক মাসের ছুটিতে এসেছিলেন বলে জানিয়েছে তার পরিবার।

.jagonews24.com

প্রত্যক্ষদর্শী ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা জানিয়েছেন, শনিবার সন্ধ্যার পরও নেসকো অফিসের পাশে একটি মুদি দোকান খোলা ছিল। করোনায় লকডাউনের কারণে সরকারি আদেশ মান্য করার জন্য দোকানিকে লাইট বন্ধ করতে বলেন আনসার সদস্য মিজান।

এনিয়ে পাশে অবস্থান করা মাধব সরকার আনসার সদস্য মিজানের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে মাধব অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করায় দু’জনের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। আশপাশের লোকজন তাদেরকে নিবৃত্ত করেন।

কিছুক্ষণ পর মিজান তার বাড়ির দিকে চলে যান। ওই সময় মাধব ধারালো ছুরি নিয়ে মিজানের ওপর অতর্কিত হামলা করে। পরপর দুইবার পেটে ছুরিকাঘাতের কারণে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে হাসপাতালে নেয়ার আগেই মারা যান তিনি।

মাধব সম্পর্কে এলাকাবাসী জানিয়েছে, কয়েকবছর আগেও মাধব নিজ এলাকায় এক ব্যক্তিকে ছুরিকাঘাত করে হত্যাচেষ্টা করে। কিন্তু মাধব প্রভাবশালী হওয়ায় ওই ভুক্তভোগী বিচার পায়নি। এছাড়াও মাধব মাদক সেবন ও ব্যবসার সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এদিকে আনসার সদস্য মিজানের হত্যার খবর পেয়ে রাজশাহী জেলার দায়িত্বে থাকা জোন-৪ আনসার ব্যাটেলিয়নের পরিচালক মোহাম্মদ মেহেদী হাসান তার বাড়িতে যান। শোকাহত পরিবার-পরিজনদের প্রতি সমবেদনা জানান।

এ সময় তিনি বলেন, ‘মিজান শুধু আনসার বাহিনীরই সম্পদ ছিলেন না। তিনি পুরো বাংলাদেশের সম্পদ ছিলেন। তার অবদানের কারণেই বাংলাদেশ আনসার বাহিনী স্বর্ণপদকসহ অনেক পদক জিতেছে।’

তিনি যোগ করেন, ‘শুনেছি হত্যাকারী একজন মাদকাসক্ত। তবে তিনি যেই হোন না কেনো ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করা হবে। রাজশাহী জেলা প্রশাসক মহোদয় এবং পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। আশা করি ঘটনায় জড়িতের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে।’

ফয়সাল আহমেদ/এএএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]