কক্সবাজারে পৃথক ঘটনায় গুলিতে নিহত ২

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কক্সবাজার
প্রকাশিত: ০১:২৫ পিএম, ১২ এপ্রিল ২০২১
ফাইল ছবি

কক্সবাজারের পেকুয়া ও টেকনাফে গুলিতে দু’জন নিহত হয়েছেন। রোববার (১১ এপ্রিল) রাত ৯টায় ও রোববার দিবাগত রাত ৩টায় পৃথকভাবে এ গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। এসময় আহত হয়েছেন আরও দুইজন।

জমি নিয়ে বিরোধে গুলিতে সেলিনা আক্তার (৩৭) নামের এক নারী আর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সোর্স ভেবে প্রতিপক্ষের গুলিতে ইমাম হোসেন (১৮) নামের এক যুবক নিহত হন।

নিহত সেলিনা আক্তার পেকুয়ার বারবাকিয়া বোদামাঝির ঘোনা এলাকার ফরিদুল আলমের স্ত্রী। আর টেকনাফে নিহত ইমাম হোসেন হ্নীলা ইউনিয়নের পশ্চিম লেদা এলাকার আব্দুর রহিমের ছেলে।

এছাড়াও আহতরা হলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র বারবাকিয়া এলাকার মো. সেলিমের ছেলে নাজমুস সাকিব (২৩) ও নুরুল আবছারের সাইফুল ইসলাম। আহতের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সাকিবের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

জানা যায়, টেকনাফের হ্নীলায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সোর্স হিসাবে পরিচিত এক যুবককে গুলি ও ছুরিকাঘাতে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। রোববার রাত ৯টায় হ্নীলা ইউনিয়নের পশ্চিম লেদা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ইমামের বড় ভাই সাদ্দাম হোছন জানান, ইমাম হোসেন মসজিদ থেকে নামাজ আদায় করে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে আকস্মিকভাবে স্থানীয় আবুল হোছনের ছেলে ইয়াবা কারবারি আব্দুল খালেকের নেতৃত্বে ১০-১৫ জনের একটি দল গুলিবর্ষণ ও এলোপাথাড়ি ছুরিকাঘাত করে তাকে টেনে-হিঁচড়ে পাহাড়ের ভেতরে নিয়ে যায়।

পূর্ব শত্রুতার জেরে চিহ্নিত দুবৃর্ত্তরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানান তিনি।

টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাফিজুর রহমান জানান, খবর পেয়ে পুলিশ স্থানীয়দের সহায়তায় জাফরের ঝিরি নামক পাহাড়ি এলাকা থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। জড়িতদের আটকে অভিযান চলছে।

নিহত যুবক একটি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সোর্স হিসাবে এলাকায় পরিচিত বলে জানান তিনি।

এদিকে জানা যায়, রোববার দিবাগত রাত ৩টায় পেকুয়ার বারবাকিয়া বোদামাঝির ঘোনা এলাকায় জমি নিয়ে বিরোধে মামুন নামের এক যুবকের গুলিতে সেলিনা আক্তার নামের গৃহবধূ নিহত হয়েছেন।

এ ঘটনার পরপরই স্থানীয়রা জড়ো হয়ে মো. হোসেনের ছেলে সন্ত্রাসী মাহামুদুল করিম ও মফিজুর রহমানকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে।

নিহতের স্বামী ফরিদুল আলম বলেন, মধ্যরাতে সন্ত্রাসীরা গুলিবর্ষণ করে নুরুল ইসলামের বসতবাড়িতে তাণ্ডব চালায়। আমার স্ত্রী সেলিনা সেসময় বাড়ি থেকে বের হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তাকে লক্ষ্য করে এলোপাথাড়ি গুলি করা হয়। এতে নিহত হন তিনি।

তিনি আরও বলেন, গুলির আওয়াজ শুনে সাকিব ও সাইফুল বাড়ি থেকে বের হলে তাদেরকেও গুলি করা হয়। একপর্যায়ে সন্ত্রাসীরা আমার চারটি গরু লুট করে নিয়ে যায়।

পেকুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুর রহমান বলেন, রোববার দিবাগত রাত ৩টায় পেকুয়ায় মামুন নামের এক যুবকের গুলিতে সেলিনা আক্তার নামের গৃহবধূ নিহত হয়েছেন। এসময় আহত হয়েছেন কলেজ ছাত্র নাজমুস সাকিব ও সাইফুল ইসলাম। পরে স্থানীয়রা দুইজনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে।

সায়ীদ আলমগীর/এসএমএম/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]